spot_img
24 C
Dhaka

১লা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ইং, ১৮ই মাঘ, ১৪২৯বাংলা

সর্বশেষ
***মায়ানমারের প্রতি কূটনৈতিক ও সামরিক সহযোগিতা বাড়িয়েছে চীন***ঐশ্বরিয়া, বিক্রম অভিনীত ‘পোন্নিয়িন সেলভান ২’ আসছে***ইসরায়েলের গুরুত্বপূর্ণ হাইফা বন্দর কিনে নিল আদানি গ্রুপ***নারীদের উপর বৈষম্য পাকিস্তানকে সাব-সাহারা দলভুক্ত করেছে***গোপালগঞ্জে ৫০ প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী পেলো স্কুল পোশাক***অনলাইন অধ্যয়নের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা সরিয়ে নিয়েছে চীন***নতুন বাজেট উন্নত ভারতের শক্তিশালী ভিত্তি তৈরি করবে : নরেন্দ্র মোদী***পেশোয়ারে মসজিদে বিস্ফোরণ: গোয়েন্দা প্রধানের অপসারণ দাবি পাকিস্তানিদের***২৬ জনকে চাকরি দেবে ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান***ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ দিচ্ছে আনোয়ার গ্রুপ

১৬ ডিসেম্বর বাঙালির গৌরব, বীরত্ব ও আত্মমর্যাদার দিন

- Advertisement -
তাপস হালদার :

১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালএই দিনে দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ শেষে বাঙালি বীরেরা বিজয় ছিনিয়ে এনেছিল মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যেখানে ঐতিহাসিক ভাষণ দিয়ে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রস্তুতি গ্রহণের নির্দেশ দিয়ে বলেছিলেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম।’ এই দিন সেই রেসকোর্স ময়দানেই (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) পাকিস্তানি বর্বর হানাদার বাহিনী আত্মসমর্পণ করে পরাজয় স্বীকার করেএই দিনটি বাঙালির কাছে গৌরব, বীরত্ব আত্মমর্যাদার দিন

বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশ সমার্থক শব্দএকটি আরেকটির পরিপূরকমুক্তিযুদ্ধ ছাড়া যেমন স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হয়নি, ঠিক তেমনি বঙ্গবন্ধুকে ছাড়া মুক্তিযুদ্ধ সংগঠিত হয়নিবঙ্গবন্ধুর সঠিক দূরদর্শী নেতৃত্বের কারণেই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পটভূমি একদিনে তৈরি হয়নিপাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর থেকেই বাঙালিদের ভাষা, সংস্কৃতি আর অর্থনৈতিক বৈষম্যের উপর আঘাত আসেবঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ অধিকার আদায়ের সংগ্রামে শুরু থেকেই ঝাঁপিয়ে পড়ে ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে প্রথম স্বাধীনতা আন্দোলনের সূচনা হয়৬৬-এর ছয়দফা, ৬৯এর গণঅভ্যুত্থান, ৭০এর নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয় লাভের পরই স্বাধীনতা চূড়ান্ত রূপ নেয়

১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ নিরঙ্কুশ বিজয় লাভ করলেও পশ্চিম পাকিস্তানি শাসকরা ক্ষমতা হস্তান্তরে টালবাহানা করেবরং সময়ক্ষেপণ করে বাঙালিদের ওপর প্রতিশোধ নিতে পশ্চিম পাকিস্তান থেকে সৈন্য জড়ো করতে থাকেএক পর্যায়ে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ অপারেশন সার্চ লাইটের নামে ঘুমন্ত নিরস্ত্র বাঙালির ওপর মানব সভ্যতার ঘৃণ্যতম গণহত্যা চালায় এবং বঙ্গবন্ধুকে ধানমন্ডির বাসভবন থেকে গ্রেফতার করা হয়বঙ্গবন্ধু গ্রেফতার হওয়ার আগেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেনএবং শেষ শত্রুটি পরাজিত না হওয়া পর্যন্ত  সংগ্রাম চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানানবঙ্গবন্ধুর আহবানে সাড়ে কোটি বাঙালি দেশমাতৃকার জন্য যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েবঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বেই দীর্ঘ মাসের মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদের রক্ত দু’লক্ষ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত হয় বাংলাদেশের স্বাধীনতাপৃথিবীর বুকে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটে

১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে  স্বদেশে ফিরে সেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানেই দেশ গঠনে সকলকে আহবান জানিয়ে  বলেছিলেন, ‘বাংলাদেশ আজ মুক্ত, স্বাধীনকিন্তু আজ আমাদের সামনে অসংখ্য সমস্যা আছে, যার আশু সমাধান প্রয়োজনবিধ্বস্ত বাঙলাকে নতুন করে গড়ে তুলুননিজেরা সবাই রাস্তা তৈরি শুরু করুনযার যার কাজ করে যানবাংলাদেশকে একটি সুখী সমৃদ্ধশালী দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে হবেএকটি লোককেও আর না খেয়ে মরতে দেয়া হবে নাসকল রকমের ঘুষ লেনদেন বন্ধ করতে হবে।’ বঙ্গবন্ধুর আহবানে সকল শ্রেণী-পেশার মানুষ দেশ গড়ার কাজে ঝাঁপিয়ে পড়েনদ্রুতই বাংলাদেশ সামনের দিকে এগিয়ে যেতে থাকে। 

১৯৭৫ সালে জাতির পিতাকে হত্যার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে অভিভাবক শূন্য করা হয়মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশের স্বপ্নকে হত্যা করা হয়মুক্তিযুদ্ধের ঐক্যবদ্ধ বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক বিভক্তি ঘটিয়ে বিভাজন সৃষ্টি করা হয়পাকিস্তানি কায়দায় সম্পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মদদে৭৫ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত উগ্র সাম্প্রদায়িকতার বীজ বপন করা হয়যার কুফল আজও ভোগ করছে বাংলাদেশদীর্ঘ সময় সামরিক শাসন বিএনপির অপশাসনে বাংলাদেশের সকল উন্নয়ন কর্মকান্ড স্থবির হয়ে যায়

বাংলাদেশের যা কিছু অর্জন হয়েছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু তাঁর কন্যা শেখ হাসিনার হাত ধরেই এসেছেপ্রতিষ্ঠার ৫১ বছরে এসে বাংলাদেশের অর্জন এখন আর কম নয় স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে দেশের মোট জনসংখ্যার ৮০ শতাংশ ছিল দারিদ্র্যসীমার নিচেএখন ৫০ বছর শেষে দারিদ্র্যসীমা ২০ শতাংশে নেমে এসেছেমাথাপিছু আয় ছিল মাত্র ১৪০ ডলার বর্তমানে যা দাঁড়িয়েছে হাজার ৮শত ২৪ ডলারআর্থ-সামাজিক মানুষের প্রাত্যহিক জীবনে ব্যাপক উন্নতি হয়েছেদারিদ্র্য দূরীকরণ, রেমিট্যান্স, মাথাপিছু আয়, জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার, নারীর ক্ষমতায়নসহ অনেক ক্ষেত্রেই বাংলাদেশ আজ রোল মডেলএক সময়ের খাদ্য ঘাটতির দেশ আজ খাদ্যে উদ্বৃত্তের সক্ষমতা অর্জন করেছেতৈরি পোষাক শিল্প আজ সারা বিশ্বে বাংলাদেশের ব্রান্ড অ্যাম্বাসেডর

বাংলাদেশ নিজের পায়ে দাঁড়িয়েছেনিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতু নির্মাণ, মেট্রোরেল, কর্ণফুলি ট্যানেল, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট, পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ, শতভাগ বিদ্যুতায়নসহ প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত পৌঁছে দেয়া হয়েছে ইন্টারনেট সেবা

একাত্তরে যে কঠিন মূল্য দিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জন করেছিল, পঞ্চাশ বছরে এসে তার সোনালী ফসল ঘরে তুলেছে বাংলাদেশএকদিন যারা দেশটির অস্তিত্ব নিয়ে সন্দিহান ছিল, তারাই আজ উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে প্রশংসা করছেবাংলাদেশ আজ আপন দক্ষতায় উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা লাভ করেছে

এক সময়ের তলাবিহীন ঝুঁড়ি আজ বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনার এক যুগের নেতৃত্বে উন্নয়নের রোল মডেলঅনুন্নত, দারিদ্র্যপীড়িত একটি দেশ কিভাবে উন্নয়নের ছোঁয়ায় বদলে যেতে পারে তার প্রকৃষ্ট উদাহরণ বাংলাদেশ

লেখকঃ সাবেক ছাত্রনেতা ও সদস্য, সম্প্রীতি বাংলাদেশ 

ইমেইলঃ haldertapas80@gmail.com

আইকেজে /

 

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ