spot_img
29 C
Dhaka

২৭শে নভেম্বর, ২০২২ইং, ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯বাংলা

শুভ জন্মদিন, ‘নগর বাউল’ জেমস

- Advertisement -

ডেস্ক নিউজ, সুখবর বাংলা: তার মাতাল কণ্ঠের উন্মাদনায় ঘর ছেড়েছে বহু বহু নাম না জানা প্রেমিকা, বিরহে কাতর প্রেমিকের বুকফাটা আর্তনাদে বেরিয়ে এসেছে, ‘আমি তারায় তারায় রটিয়ে দেবো তুমি আমার’। রাশভারী কণ্ঠে যিনি কোটি তরুণকে বারবার আশ্বস্ত করেছেন এই বলে- “পথের মাঝে খুঁজে পাবি আপন ঠিকানা…”।

কখনো তিনি নগরবাউল, কখনো রকস্টার। তিনি জেমস। ফারুক মাহফুজ আনাম জেমস। এদেশের রক গানের ভক্তদের কাছে তিনি গুরু। আজ রোববার (২ অক্টোবর) তার জন্মদিন। ভক্ত-অনুরাগীদের ভালোবাসায় সিক্ত হচ্ছেন তিনি। সামাজিক মাধ্যমগুলো জন্মদিনের অসংখ্য শুভেচ্ছা বার্তায় ভরে উঠেছে। ভক্তদের পাশাপাশি শুভকামনা জানিয়েছেন শোবিজের অনেকেই।

এ উপমহাদেশের অন্যতম সেরা রকস্টার জেমস। সংগীতের এই কালপুরুষের জন্ম ১৯৬৪ সালের ২ অক্টোবর নওগাঁর পত্নীতলায় । বেড়ে ওঠা এবং সংগীতে জড়িয়ে পড়ার পুরোটাই চট্টগ্রামে। নগর বাউল জেমসের বাবা ছিলেন সরকারি কর্মকর্তা। পরিবারের একরকম দ্বিমতে সংগীতচর্চা শুরু করেন জেমস। একসময় তিনি সংগীতের জন্য ঘর ছেড়ে পালিয়ে যান। উঠেন চট্টগ্রামের আজিজ বোর্ডিং-এ।  সেখানে থেকেই তার সংগীতের ক্যারিয়ার শুরু হয়।গানের কথায় ভিন্নতা ও কাব্যধর্মী শব্দের আধিক্য জেমসকে সকল কণ্ঠশিল্পীদের থেকে আলাদা করে ফেলে। যার কারণে জেমসের গানের আলাদা বৈশিষ্ঠ তৈরি হয়ে যায়।

১৯৮০ সালে প্রতিষ্ঠা করেন ‘ফিলিংস’ নামক একটি ব্যান্ড। জেমস নিজেই ব্যান্ডের প্রধান গিটারিস্ট ও ভোকালিস্ট ছিলেন। ১৯৮৭ সালে তার প্রথম অ্যালবাম ‘ষ্টেশন রোড’ প্রকাশ পায়। যদিও অ্যালবামটি সে সময়ের শ্রোতাদের গান শোনার রুচির সাথে একটু ভিন্ন মেজাজের হওয়ায় জনপ্রিয়তা পায়নি। পরে ১৯৮৮ সালে ‘অনন্যা’ নামের অ্যালবাম রিলিজ করে সুপারহিট হয়ে যান জেমস।

এরপর ১৯৯০ সালে ‘জেল থেকে বলছি’, ১৯৯৬ ‘নগর বাউল’, ১৯৯৮ সালে ‘লেইস ফিতা লেইস’, ১৯৯৯ সালে ‘কালেকশন অফ ফিলিংস’ অ্যালবামগুলো ফিলিংস ব্যান্ড থেকে বের হয়।

এছাড়াও জেমসের অন্যান্য অ্যালবামগুলো হল নগর বাউল থেকে ‘দুষ্টু ছেলের দল’, ‘বিজলি’। একক অ্যালবাম ‘অনন্যা’, ‘পালাবি কোথায়’, ‘দুঃখিনী দুঃখ করোনা’, ‘ঠিক আছে বন্ধু’, ‘আমি তোমাদেরই লোক’, ‘জনতা এক্সপ্রেস’, ‘তুফান’, ‘কাল যমুনা’ ।

জেমস চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক করেও সফল হয়েছেন। তার বেশ কিছু গান চলচ্চিত্রে সুপারহিট হয়ে আছে। ‘দেশা দ্য লিডার’, ‘সত্তা’ ছবির জন্য গান করে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও পেয়েছেন তিনি।

জেমসের জনপ্রিয়তা শুধু দেশে নয়, আর্ন্তজাতিক পরিমণ্ডলেও ব্যাপক জনপ্রিয় নগরবাউল ব্যান্ডের এই তারকা। পাশের দেশ কলকাতাতেও সেই নব্বই দশক থেকে একটি প্রজন্ম বেড়ে উঠেছে, গান করেছে তাকে অনুসরণ করে।

বাংলা গানের পাশাপাশি হিন্দি গানে কণ্ঠ দিয়েও জয় করেছেন লক্ষ ভক্ত শ্রোতার হৃদয়। বলিউডে তার গাওয়া ‘ভিগি ভিগি’ [গ্যাংস্টার], ‘চল চলে’ [ও লামহে] এবং ‘আলবিদা’, ‘রিস্তে’ [লাইফ ইন অ্যা মেট্টো], ‘বেবাসি’ [ওয়ার্নিং] গানগুলো উল্লেখযোগ্য।

স্টেজে নিয়মিত ব্যস্ত থাকলেও নতুন গানে অনেক বছরের বিরতি টেনেছিলেন। গত বছর ‘আই লাভ ইউ’ গানটি প্রকাশের মধ্যে দিয়ে সেই বিরতির অবসান হয়। গণমাধ্যমকে জেমস জানিয়েছেন, দ্রুতই ভক্তদের জন্য আরও  একটি নতুন গান নিয়ে হাজির হবেন তিনি। সেই গানের কাজ এখন চলছে।

এম/ 

আরো পড়ুন:

এসডি রুবেল পরিচালিত ‘বৃদ্ধাশ্রম’ সিনেমা মুক্তি পাবে নভেম্বরে

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ