spot_img
25 C
Dhaka

২রা ডিসেম্বর, ২০২২ইং, ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯বাংলা

রাজধানীতে ভবন নির্মাণে সিটি করপোরেশনের অনুমতি লাগবে: মেয়র আতিক

- Advertisement -

নিজস্ব প্রতিবেদক, সুখবর বাংলা: ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছেন, রাজধানীতে ভবন নির্মাণ করতে গেলে অবশ্যই সিটি করপোরেশনের অনুমতি নিতে হবে।

বুধবার (২৬ অক্টোবর) রাজধানীর গুলশানে একটি হোটেলে ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ, সেন্টার ফর আরবান স্টাডিজ, ইউএন-হ্যাবিট্যাট এবং ডিএনসিসির প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্পের সম্মিলিতভাবে আয়োজিত ‘নিম্ন আয়ের মানুষের আবাসন ও নাগরিক সুবিধাসমূহ : প্রেক্ষিত ঢাকা’ শীর্ষক নগর কথা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেছেন, ‘ঢাকা শহরে উন্মুক্ত স্থান ও গাছপালা ধ্বংস করে একের পর এক ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। নগরে অপরিকল্পিতভাবে স্থাপনা করা হচ্ছে। এগুলো কেন করা হচ্ছে, কার পরামর্শে হচ্ছে? সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে। এখন সময় এসেছে নগরে ভবন নির্মাণ করতে গেলে অবশ্যই সিটি কর্পোরেশনের অনুমতি নিতে হবে। সবুজ এলাকা ও উন্মুক্ত স্থান ধ্বংস করে কিছু করতে দেওয়া হবে না। আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কথা ভাবতে হবে।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ডিএনসিসি মেয়র বলেন, ‘এয়ারপোর্ট সড়কে বনানী চেয়ারম্যান বাড়ির সামনে সিটি ফরেস্ট ছিল, সেটা ধ্বংস করে কেন সেতু ভবন করা হয়েছে। সেতু ভবনের পাশে আবার বিআরটিএ ভবন করা হয়েছে। কিছুদিন আগে আবারও গাছপালা কেটে ভবন নির্মাণ করতে গেলে আমি বন্ধ করে দেই। ড্যাপের মধ্যে এবং নগর পরিকল্পনায় এই জায়গাগুলোতে যদি সিটি ফরেস্ট থাকে তাহলে ভবন ভাঙতে হবে। নগরের প্রয়োজনে, জনগ‌ণের স্বা‌র্থে যেকোনো ভবন ভাঙতে হবে।’

সব বিভাগের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করার কথা উল্লেখ করে আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘যে‌কোনো কা‌জ দে‌শ-দ‌শের স্বার্থে হ‌লে আমি আপনা‌দের সঙ্গে যোগ দে‌ব। য‌দি নি‌জের স্বা‌র্থে হ‌য় তাহ‌লে আমি আপনা‌দের সঙ্গে নেই। সুন্দর নগরায়ন কর‌তে গে‌লে সবাই‌কে একস‌ঙ্গে কাজ কর‌তে হ‌বে। অন‌্যা‌য়ের প্রতিবাদ কর‌তে হ‌বে।

খাল উদ্ধার ও নদী বাঁচার কথা জা‌নি‌য়ে ঢাকা উত্তরের মেয়র ব‌লেন, ‘ঢাকার নদী বাঁচাতে হ‌বে আর নদী বাঁচা‌তে হ‌লে খাল খনন কর‌তে হ‌বে। ঢাকার খাল‌কে বাঁচাতে হ‌লে সিএস দা‌গের মাধ‌্যমে সীমানা নির্ধারণ করতে হ‌বে। মহানগর জরিপ অনুসরণ করলে শহরকে বাঁচানো যাবে না। কল্যাণপুর রিটেনশন পন্ড দখল হয়ে গেছে। এগুলো উদ্ধারে আমরা কাজ করছি। খাল উদ্ধা‌রে সীমানা পিলার লাগা‌নো শুরু ক‌রে‌ছি।’

মেয়র আরও বলেন, ‘দিন দিন তাপমাত্রা বেড়ে যাচ্ছে। গাছ লাগাতে হবে। নগরবাসীকে ছাদবাগান করতে উৎসাহিত করছি। ছাদবাগান করলে ১০ শতাংশ ট্যাক্স রিবেট দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে। এই ফাইলটি মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। আশা করি দ্রুতই অনুমোদন হয়ে যাবে।’

নিম্নআয়ের মানুষের জন্য সিটি কর্পোরেশন কাজ করছে উল্লেখ করে আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘হকারদের নগরের অংশ হিসেবে চিন্তা করে স্মার্ট ব্যবস্থাপনার আওতায় আনার জন্য মিরপুর দশ নম্বরে পাইলট প্রকল্প নিয়েছি। সপ্তাহে পাঁচ দিন নির্দিষ্ট হকাররা বিকাল ৪টার পর থেকে ফুটপাতে বসছে। অন্যসময় ফুটপাতে কোন হকার বসতে পারবে না। পর্যায়ক্রমে পুরো এলাকায় এটি চালু করা হবে। হলিডে মার্কেট ও ইভিনিং মার্কেট করার পরিকল্পনাও রয়েছে।’

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

ওআ/

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ