spot_img
31 C
Dhaka
spot_imgspot_imgspot_imgspot_img

৭ই অক্টোবর, ২০২২ইং, ২২শে আশ্বিন, ১৪২৯বাংলা

সর্বশেষ

মাছের পোনা উৎপাদন এবং বিপণনে স্বর্ণপদক পেলেন দিনাজপুরের তারেক

- Advertisement -

নিজস্ব প্রতিবেদক, সুখবর বাংলা: উন্নতজাতের মাছের পোনা উৎপাদন এবং বিপণনে ২০২২ মৎস্য সপ্তাহে স্বর্ণপদক পেয়েছেন দিনাজপুরের যুবক এলিন তারেক। মৎস্য চাষ করে নিজের সফলতার পর এবার নিজ এলাকায় ২০০ প্রান্তিক মৎস্যচাষিকে পাঁচ লাখ মাছের পোনা বিনামূল্যে বিতরণও শুরু করেছেন তিনি।

এলিন তারেক রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ২০১২ সালে এমবিএ শেষ করেন। এরপর বাড়ি ফিরে চাকরি না করে বড় ভাইয়ের পরামর্শে ২০১৪ সালে একটি পুকুরে রেণু থেকে মাছের পোনা উৎপাদন শুরু করেন। মায়ের নামে ‘মমতাজ এগ্রো ফিড’ চালু করেন তিনি। স্বল্প সময়ে রেণু উৎপাদনে সফলতা পেয়ে পিছনে তাকাতে হয়নি তারেককে। বেড়েছে পুকুরের পরিধিও।

এলিন তারেক দিনাজপুর সদর থেকে ৬০ কিলোমিটার দক্ষিণে সীমান্তবর্তী উপজেলা বিরামপুরের প্রত্যন্ত অঞ্চল বিনাইল গ্রামের বাসিন্দা। গ্রামটিতে রয়েছে তাজ এগ্রো ফার্মের ১৬টি পুকুর। পুকুরগুলোতে রেণু থেকে পোনা উৎপাদন, সেই পোনা বড় করা হচ্ছে অন্য পুকুরে। এতে ব্যয় হয়েছে কোটি টাকা। প্রতিমাসে পোনা বিক্রি হয় ১০ লাখ টাকা। বছরে অর্ধ কোটি টাকা আয় করলেও আগামীতে কোটি টাকা আয়ের আশা ওই খামারির।

জানতে চাইলে উদ্যোক্তা এলিন তারেক বলেন,  লেখাপড়া শেষ করে বাসায় ফিরে দুশ্চিন্তায় ছিলাম,  কি করবো? মা বাবার ইচ্ছা ছিলো আমি যেনো চাকরি করি। তবে বড় ভাইয়ের ইচ্ছা আমি যেন প্রত্যন্ত অঞ্চলের গ্রামের মানুষের জন্য কিছু করি। বড় ভাইয়ের এমন উৎসাহ নিয়ে একটি পুকুর প্রথমে রেণু পোনা মাছ চাষ শুরু করি। এরপর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি আমাকে। একটি একটি করে ষোলটি পুকুর বর্তমানে যেখানে স্থানীয় বেশ কিছু মানুষের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা কাউছার বলেন, বিরামপুর উপজেলাটি সীমান্ত এলাকা হলেও এখানে মাছ চাষে অনেক সম্ভাবনা রয়েছে। আমি এই উপজেলাটিতে যোগদানের পর থেকে তাজ এগ্রো ফার্মের মালিক শিক্ষিত যুবক এলিন তারেককে সব ধরনের সহযোগিতাসহ পরামর্শ দিয়ে আসছি। তিনি মৎস্য সপ্তাহ ২২ স্বর্ণ পদক পেয়েছেন।

বিরামপুর উপজেলা চেয়ারম্যান খায়রুল আলম রাজু বলেন, বর্তমান সরকার বিভিন্ন খামারিদের যুব উন্নয়নের প্রশিক্ষণসহ নানা ধরনের সহযোগিতা করছেন। গেল মহামারী করোনার সময় খামারিদের প্রণোদনাও  দিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, সরকারের নানামুখী উদ্যোগ এবং সহযোগিতায় অনেক শিক্ষিত যুবক আজ বেকার থাকে না স্বাবলম্বী হচ্ছেন তারই এক উদাহরণ বিরামপুরের শিক্ষিত যুবক। তিনি মাছ চাষ করে স্বর্ণপদক পেয়েছেন। মাসে লাখ লাখ টাকা আয়ও করছেন। সেখানে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে অনেক বেকার যুবকের। এ ধরনের খামারিদের সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে।

আরও পড়ুন:

চট্টগ্রাম বন্দরের বে টার্মিনাল প্রকল্প পরিদর্শন করবে বিশ্বব্যাংকের প্রতিনিধি দল

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ