spot_img
24 C
Dhaka

১লা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ইং, ১৮ই মাঘ, ১৪২৯বাংলা

সর্বশেষ
***মায়ানমারের প্রতি কূটনৈতিক ও সামরিক সহযোগিতা বাড়িয়েছে চীন***ঐশ্বরিয়া, বিক্রম অভিনীত ‘পোন্নিয়িন সেলভান ২’ আসছে***ইসরায়েলের গুরুত্বপূর্ণ হাইফা বন্দর কিনে নিল আদানি গ্রুপ***নারীদের উপর বৈষম্য পাকিস্তানকে সাব-সাহারা দলভুক্ত করেছে***গোপালগঞ্জে ৫০ প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী পেলো স্কুল পোশাক***অনলাইন অধ্যয়নের উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা সরিয়ে নিয়েছে চীন***নতুন বাজেট উন্নত ভারতের শক্তিশালী ভিত্তি তৈরি করবে : নরেন্দ্র মোদী***পেশোয়ারে মসজিদে বিস্ফোরণ: গোয়েন্দা প্রধানের অপসারণ দাবি পাকিস্তানিদের***২৬ জনকে চাকরি দেবে ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান***ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ দিচ্ছে আনোয়ার গ্রুপ

বাপ্পি লাহিড়ী : উপমহাদেশের কিংবদন্তী এক সুরস্রষ্ট্রা (ভিডিও)

- Advertisement -

মাহবুব মারুফ, সুখবর ডটকম: বাপ্পি লাহিড়ী ছিলেন একজন হিন্দী চলচ্চিত্রসহ বাংলা গানের গীতিকার, সুরকার, সঙ্গীত পরিচালক ও অভিনেতা। এছাড়াও গায়ক হিসেবে ভারতীয় উপমহাদেশে পরিচিত ছিলেন বাপ্পি লাহিড়ী। তার জীবনে তিনি একাধিক গান লিখেছেন এবং নিজকণ্ঠে সুর দিয়েছেন। ১৯৮০’র দশকে বাপ্পি লাহিড়ী ডিস্কো ড্যান্সার, নমক হালাল এবং শরাবী’র ন্যায় বিভিন্ন চলচ্চিত্রে ভারতীয় ধাঁচে ডিস্কো সংগীত পরিবেশন করতেন। বাংলা, হিন্দি, তামিল, তেলেগু এবং গুজরাটি সিনেমাতেও কাজ করেছেন তিনি। এছাড়াও বিখ্যাত পপ গায়ক মাইকেল জ্যাকসনও তার শোতে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন ডিস্কো কিং বাপ্পি লাহিড়ীকে।

  • জন্ম ও পরিবার

১৯৫২ সালের ২৭ শে নভেম্বর পশ্চিমবঙ্গের কলকাতায় শাস্ত্রীয় সঙ্গীতে সমৃদ্ধ এক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন বাপ্পী লাহিড়ি। বাপ্পী লাহিড়ির পিতার নাম অপরেশ লাহিড়ী। অপরেশ লাহিড়ী ছিলেন একজন বাংলা সঙ্গীতের জনপ্রিয় গায়ক এবং মা বাঁশরী লাহিড়ি। তিনিও ছিলেন একজন সঙ্গীতজ্ঞ ও গায়িকা যিনি শাস্ত্রীয় ঘরানার সঙ্গীত এবং শ্যামা সঙ্গীতে বিশেষ পারঙ্গমতা দেখিয়েছিলেন।

অপরেশ ও বাঁশরী দেবীর একমাত্র সন্তান ছিলেন বাপ্পি লাহিড়ী। তার ডাক নাম অলকেশ বাপ্পি লাহিড়ী। সংগীত জগতে তিনি বাপ্পি দা নামেও পরিচিত। বিখ্যাত সঙ্গীত শিল্পী কিশোর কুমার সম্পর্কে তার মামা। যে কারণে ছোটবেলা থেকেই গানে পারদর্শী ছিলেন বাপ্পি লাহিড়ী। বাপ্পি লাহিড়ী বিবাহিত এবং তিনি দুই সন্তানের পিতা। তার স্ত্রীর নাম চিত্রাণী লাহিড়ী, কন্যার নাম রেমা লাহিড়ী এবং পুত্রের নাম বাপ্পা লাহিড়ী।

  • বাংলাদেশের সাথে সম্পর্ক

ভারতীয় উপমহাদেশের প্রখ্যাত গীতিকার, সুরকার, সংগীত পরিচালক বাপ্পি লাহিড়ীর পৈতৃক বাড়ি বাংলাদেশের পাবনা জেলার ফরিদপুর উপজেলার গোপালনগর গ্রামে। বাপ্পি লাহিড়ীর পাবনায় আসার কোনো তথ্য নেই। তবে তার বাবা অপরেশ লাহিড়ী একাধিকবার পাবনায় এসেছেন। তিনি শহরের জুবিলী ট্যাংকপাড়ায় আত্মীয়ের বাড়িতে উঠতেন। বাপ্পি লাহিড়ী কখনো পাবনায় না এলেও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বলতেন, ‘আমি বাংলাদেশের পাবনার সন্তান’।

  • সংগীত জীবন

বাপ্পি লাহিড়ীর বয়স যখন ১৯ তখন তিনি কলকাতা ছেড়ে মুম্বাইয়ের উদ্দেশে রওনা দিয়েছিলেন। তারপর হিন্দি ভাষায় নির্মিত নানহা শিকারি ছবিতে তিনি প্রথম গীত রচনা করেন ১৯৭৩ সালে। এরপর তিনি ১৯৭৫ সালে তাহির হুসেনের জখমী চলচ্চিত্রে কাজ করেন। এতে তিনি সংগীত রচনাসহ সংগীতে অংশগ্রহণ করেন।

মিঠুন চক্রবর্তীর ডিস্কো ড্যান্সার ছবিতে সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে কাজ করেছেন বাপ্পি লাহিড়ী। এছাড়াও ১৯৮০’র দশকে বহু ডিস্কো ড্যান্সার চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন তিনি। শুধু বাংলাতেই নয়, দক্ষিণ ভারত থেকে পরিচালিত অনেক হিন্দি চলচ্চিত্রের গানে অংশ নিয়েছেন। সমগ্র ভারতবর্ষ জুড়ে ডিস্কো কিং নামে খ্যাতি লাভ করেন বাপ্পি লাহিড়ী। তবে ১৯৯০’র দশকে ভারতীয় চলচ্চিত্র জগৎ থেকে অনেক দূরে সরে যান তিনি। স্বল্প সময়ের জন্য ভারতীয় চলচ্চিত্র জগতে দেখা মিলেছিল প্রকাশ মেহরা’র ‘দালাল’ ছবিতে।

  • রাজনৈতিক জীবন

বাপ্পি লাহিড়ী ৩১শে জানুয়ারী ২০১৪ সালে ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগদান করেন। শ্রীরামপুর লোকসভা নির্বাচনে ভারতীয় জনতা পার্টির হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন তিনি। তবে শ্রীরামপুর লোকসভা কেন্দ্রে বিপুল ভোটে পরাজিত হন।

  • সঙ্গীত পরিচালনা

বাপ্পি লাহিড়ী বেশীরভাগ সময় ভারতীয় ধাচে ডিস্কো সংগীত পরিবেশন করতেন। তার জীবনে তিনি একাধিক চলচ্চিত্রে সংগীত পরিচালনা করেছেন। তার মধ্যে অন্যতম হল – এক বার কহো, সুরক্ষা, ওয়ারদাত, আরমান, চলতে চলতে, কমাণ্ডো, ইলজাম, পিয়ারা দুশমন, ডিস্কো ড্যান্সার, ড্যান্স ড্যান্স, ফিল্ম হি ফিল্ম, সাহেব, টারজান, কসম পয়দা করনে ওয়ালে কি, ওয়ান্টেড, ডেড অর এলাইভ, গুরু, জ্যোতি, নমক হালাল, শরাবী, এইতবার, জিন্দাগী এক জুয়া, হিম্মতওয়াল, জাস্টিস চৌধুরী, নিপ্পু রাব্বা, রোদী ইন্সপেক্টর, সিমহাসনম, গ্যাং লিডার, রৌদী অল্লাদু, ব্রহ্মা, হাম তুমহারে হ্যায় সনম এবং জখমী।

এ ছাড়াও তিনি মালায়ালম চলচ্চিত্র (কেরালা) দ্য গুড বয়েজ ছবির সঙ্গীত পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন।

আরো একটি মজার বিষয় হলো তিনি এক বছরে ৩৩টি ছবি করে গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ড করেন।

  • পুরস্কার

১৯৮৬ সালে বাপ্পী লাহিড়ী শরাবি ছবির জন্য শ্রেষ্ঠ সঙ্গীত পরিচালকের ফিল্মফেয়ার পুরস্কারে ভূষিত হন। ভারতের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিয়ানি জৈল সিং – এর “থানেদার” ছবিটিও ১৯৯০ সালে সেরা সঙ্গীত স্কোরের জন্য পুরস্কৃত হয়েছিল। এছাড়াও তিনি ডিস্কো ড্যান্সার চলচ্চিত্রের জন্য চায়না পুরস্কারে ভূষিত হন।

  • শেষ জীবন

২০২১ সালে কিংবদন্তী সঙ্গীতশিল্পী বাপ্পি লাহিড়ী মহামারি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হন। তারপর থেকেই তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। করোনা আক্রান্ত হয়ে মুম্বাইয়ের সিটি কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন তিনি। এরপর ২০২২ সালের ১৫ই ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার রাত বারোটা নাগাদ হাসপাতালেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। ৬৯ বছর বয়সে অবস্ট্রাক্টিভ স্লিপ অ্যাপনিয়ার কারণে পরলোক গমন করেন বাপ্পি দা।

এম/আইকেজে

আরো পড়ুন:

বিজয়ের মাসে ২টি প্রদর্শনী নিয়ে আসছে বাতিঘরের নাটক ‘ঊর্ণাজাল’

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ