spot_img
31 C
Dhaka
spot_imgspot_imgspot_imgspot_img

৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ইং, ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯বাংলা

ফেসবুকের মাধ্যমে ২২ বছর পর ফেনীতে বাবার খোঁজ পেলেন পাকিস্তানি তরুণী

- Advertisement -

ডেস্ক নিউজ, সুখবর বাংলা: ‘আমাদের ফেনী’ নামে ফেসবুক পেজে পোস্ট দিয়ে ২২ বছর আগে হারিয়ে যাওয়া পিতৃপরিচয় খুঁজে পেলেন পাকিস্তানি তরুণী তাহরিম রিদা। তার বাবার বাড়ি ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলার ফাজিলের ঘাট এলাকায়।

গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় বিকেল ৩টা ৫৭ মিনিটে তার ব্যক্তিগত আইডি থেকে রিদা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম আমাদের ফেনী গ্রুপে একটি স্টাটাস দেন।

সেখানে তিনি উল্লেখ করেন, ‘আসসালামু আলাইকুম, আমি এখানে আমার বাবার পরিবার খুঁজতে এসেছি। আমার বাবা পাকিস্তান এসে আমার মাকে বিয়ে করেছিলেন। তিনি বাংলাদেশের ফেনী থেকে এসেছিলেন, তার নাম ছিল মুহাম্মদ কাসিম আজাদ, আমার দাদার নাম তফাজুল হক। যিনি সম্ভবত আমার পিতার শৈশবে অতিবাহিত হয়েছিলেন। আমি আমার বাবার পরিবার সম্পর্কে প্রায় কিছুই জানি না। গ্রুপে নিজ চাচার একটি ছবি দিয়ে তিনি বলেন, আবু সাদিক আমার বাবার বড় ভাই। যদি কেউ এই পরিবার সম্পর্কে কিছু জানেন তবে আমার পরিবারের সাথে দেখা করা যাবে, এটা আমার জন্য খুবই আনন্দের হবে, যা আমি কখনো দেখিনি।
স্ট্যাটাস দেওয়ার ২৩ মিনিটের মধ্যে তাহরিমের বাবার পরিবারের সাথে মেয়েটির পরিচয় হয়। মেয়েটির বাড়ি দাগনভূঞার ফাজিলের ঘাটে। তার ফুফু ও ফুফাত বোনের ছেলের সাথে কথা হয়। তাহরিমের দাবি, কলেজে বা বাইরে গেলে তার বাবার পরিচয় জানতে অনেকেই বিরক্ত করে। পিতৃপরিচয় না থাকায় অবহেলিত হতে হয়েছে ২২ বছর।

তাহরিমের বাবা পাকিস্তান থাকাকালে তার মাকে (মেহবুবা) বিয়ে করেন। পাকিস্তানে তার মাকে রেখে দেশে এলে তার বাবা অসুস্থ হয়ে মারা যান। এরপর তার পরিবারের সাথে আর কোনো পরিচয় ঘটেনি।

‘আমাদের ফেনী’ গ্রুপের অ্যাডমিন ইমদাদুল হক গণমাধ্যমকে জানান, তাহরিমের বাবা দেশে এসে তার মাকে চিঠি পাঠাত। চিঠিতে উল্লেখিত ঠিকানা সংগ্রহ করে তাহরিম ফেনী নামক শব্দটি খুঁজে পায়। পরে ফেনী গুগলে সার্চ করে জানতে পারে এটি একটি জেলা। পরে ফেনী সার্চ করে আমাদের ফেনী নামক গ্রুপটি পায়। এরপর যাবতীয় ডিটেইলসসহ ফেসবুকে ইংরেজিতে পোস্ট করেন। এরপর ট্রান্সলেশন করে বাংলায় পোস্ট দেন অ্যাডমিন প্যানেল। এভাবে দাগনভূঞার ওসি, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ স্থানীয় সোশ্যাল এক্টিভিস্টদের মাধ্যমে তাহরিমের বাবার পরিবারের কাছে বার্তা পৌঁছে যায়। বর্তমানে উভয় পরিবার একে অপরকে এত বছর পর পেয়ে আবেগে আপ্লুত।

পিতৃপরিচয় পেয়ে তাহরিম রিদা বলেন, ফেনীর মানুষকে কী বলে ধন্যবাদ দেবো তা বলার ভাষা আমার নেই। আমাকে যারা খুঁজে পেতে সহায়তা করেছেন সবাইকে আল্লাহ নেক হায়াত দান করুক। শিগগিরই আপনাদের সাথে দেখা হচ্ছে।

‘আমাদের ফেনী’ গ্রুপের অ্যাডমিন শাখাওয়াত হোসেন রাজীব জানান, তাহমিদ রিদা এভাবে তার পরিবার খুঁজে পাবে কখনো কল্পনা করেনি। ফেসবুক গ্রুপের কারণে প্রায় ২২ বছর পর পিতৃপরিচয় পেয়ে তার বহুদিনের কষ্ট দূর হয়েছে। এ ঘটনায় তার পাশাপাশি গ্রুপের অ্যাডমিন ও সদস্যরা বেশ খুশি।

আরো পড়ুন:

আর্থিক স্বচ্ছতার উল্লেখজনক অগ্রগতি বাংলাদেশের

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ