spot_img
27 C
Dhaka

৩০শে নভেম্বর, ২০২২ইং, ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯বাংলা

সর্বশেষ
***আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপ জিতলে বাংলাদেশের উচ্ছ্বাস দেখতে আসবেন আর্জেন্টাইন সাংবাদিক***যৌনপল্লীর গল্প নিয়ে পূর্ণদৈর্ঘ্য সিনেমা ‘রঙবাজার’***কেন ক্ষমা চাইলেন কিংবদন্তি গায়ক বব ডিলান***বিলুপ্তপ্রায় কুমিরের সন্ধান, পুনর্ভবা নদীর তীরে মানুষের ভিড়***সোহরাওয়ার্দী উদ্যান নয়, নয়াপল্টনেই হবে সমাবেশ : বিএনপি***পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ সন্ত্রাসী দল টিটিপি ইসলামাবাদের গলার কাঁটা?***পাকিস্তান-আফগানিস্তানের সম্পর্ক কি শেষের পথে?***শীত মৌসুম, তুষার এবং বরফকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে রাশিয়া : ন্যাটো***নানা সুবিধাসহ বাংলাদেশ ফাইন্যান্সে চাকরির সুযোগ***বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষার সূচি ও আসনবিন্যাস প্রকাশ

পাকিস্তান ভ্রমনে সর্তকতা জারি যুক্তরাষ্ট্রের

- Advertisement -

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, সুখবর বাংলা: সন্ত্রাসবাদ এবং সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ‘বর্ধিত ঝুঁকি’র জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পাকিস্তানে তার নাগরিকদের জন্য ভ্রমণ পরামর্শ জারি করেছে। নাগরিকদের পাকিস্তানের কিছু নির্দিষ্ট এলাকায় ভ্রমণের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

৫ অক্টোবর, লেভেল-৩ ট্রাভেল অ্যাডভাইজরিতে মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্ট মার্কিন নাগরিকদের সন্ত্রাসবাদ এবং অপহরণসহ বিভিন্ন সম্ভাবনার কারণে সাবেক ফেডারেল অ্যাডমিনিস্টার্ড ট্রাইবাল এলাকা (এফএটিএ) সহ বেলুচিস্তান এবং খাইবার পাখতুনখোয়া (কেপিকে) প্রদেশে ভ্রমণ না করার পরামর্শ দিয়েছে।

পাকিস্তানে মার্কিন নাগরিকদেরও সশস্ত্র সংঘাতের সম্ভাবনার কারণে নিয়ন্ত্রণ রেখার আশেপাশে ভ্রমণ না করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

‘‘সন্ত্রাসী দলগুলো পাকিস্তানে হামলার ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। সন্ত্রাসবাদ এবং চরমপন্থীদের দ্বারা চলমান সহিংসতার ফলে তারা নির্বিচারে বেসামরিকদের পাশাপাশি স্থানীয় সামরিক এবং পুলিশের উপরেও হামলা চালিয়ে যাচ্ছে।’’

সন্ত্রাসীরা গণপরিবহন, বাজার, শপিংমল, সামরিক স্থাপনা, বিমানবন্দর, বিশ্ববিদ্যালয়, পর্যটন স্থান, স্কুল, হাসপাতাল, উপাসনালয় এবং সরকারি সুযোগ-সুবিধা লক্ষ্য করে সামান্য বা কোনো ধরনের কোন সতর্কতা ছাড়াই আক্রমণ করতে পারে। সন্ত্রাসীরা অতীতে মার্কিন কূটনীতিক এবং কূটনৈতিক স্থাপনাকে লক্ষ্য করে হামলা চালিয়েছে।

‘‘পাকিস্তান জুড়ে সন্ত্রাসী হামলা অব্যাহত রয়েছে, যার বেশিরভাগই প্রাক্তন এফএটিএ সহ বেলুচিস্তান এবং কেপিকে তে ঘটে। বড় আকারের সন্ত্রাসী হামলার ফলে অসংখ্য হতাহতের ঘটনাও ঘটেছে।’’

অবশ্য ২০১৪ সাল থেকে পাকিস্তানের নিরাপত্তা পরিবেশ উন্নত হয়েছে যখন পাকিস্তানি নিরাপত্তা বাহিনী সমন্বিত সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গি দমন অভিযান পরিচালনা করে।

প্রধান শহরগুলিতে, বিশেষ করে ইসলামাবাদে বৃহত্তর সুরক্ষা সংস্থান এবং অবকাঠামো রয়েছে এবং এই অঞ্চলের নিরাপত্তা বাহিনী দেশের অন্যান্য এলাকার তুলনায় জরুরি অবস্থার প্রতিক্রিয়া জানাতে আরও সহজে সক্ষম। যদিও হামলার হুমকি এখনও বিদ্যমান। তবে ইসলামাবাদে সন্ত্রাসী হামলা বিরল।

নিরাপত্তা ব্যবস্থার কারণে পাকিস্তানে নাগরিকদের জরুরি সেবা দেওয়ার ক্ষমতা মার্কিন সরকার সীমিত করেছে। ‘‘পাকিস্তানের অভ্যন্তরে মার্কিন সরকারের কর্মীদের ভ্রমণ সীমিত, এবং মার্কিন কূটনৈতিক সুবিধার বাইরে মার্কিন সরকারের কর্মীদের চলাচলের উপর অতিরিক্ত বিধিনিষেধ দেওয়া হয়েছে। এসব বিধিনিষেধ স্থানীয় পরিস্থিতি এবং নিরাপত্তা পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে, যা হঠাৎ পরিবর্তন হতে পারে।’’

তবে পেশোয়ারে মার্কিন কনস্যুলেট জেনারেল মার্কিন নাগরিকদের কোনও কনস্যুলার পরিষেবা দিতে সক্ষম নয়।

কেকে/ওআ

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ