spot_img
20 C
Dhaka

২৭শে জানুয়ারি, ২০২৩ইং, ১৩ই মাঘ, ১৪২৯বাংলা

নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে কক্সবাজার-কুয়াকাটায় পর্যটকের ঢল

- Advertisement -

নিজস্ব প্রতিবেদক, সুখবর ডটকম: বছরের শেষ সূর্যাস্তকে উপভোগ ও নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে কক্সবাজার ও কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে ভিড় জমিয়েছেন লাখো পর্যটক। মেঘাচ্ছন্ন আকাশে জ্বলজ্বলে সূর্য না থাকলেও এই দিনটিকে স্মরণ করে রাখতে নিজের মোবাইল ফোনে পরিবার-পরিজনের ছবি তুলে রাখছেন দর্শনার্থীরা। ইংরেজি নতুন বছরকে বরণ করতে হোটেল-মোটেল কর্তৃপক্ষও রেখেছে নানা আয়োজন।

নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে বিশ্বের দীর্ঘতম সৈকত কক্সবাজারে ঢল নেমেছে পর্যটকদের। কানায় কানায় পূর্ণ সাগর তীর। পর্যটকরা বলছেন, সকল দুঃখ-কষ্ট ভুলে সবকিছু নতুন করে শুরু করার আশায় কক্সবাজার ছুটে আসা। তাই তাদের নিরাপত্তায় সব ধরনের ব্যবস্থাও নিয়েছে টুরিস্ট পুলিশ এবং লাইফ গার্ড।

বছরের শেষ সূর্যাস্ত দেখতে কক্সবাজার সমুদ্রসৈকতের সুগন্ধা পয়েন্টে আজ জড়ো হন অন্তত ৭০ হাজার পর্যটক। সবার নজর সূর্যের দিকে। কেউ মুঠোফোনে ছবি তুলছেন, কেউ ধারণ করছেন ভিডিও চিত্র। এমনই এক আনন্দময় পরিবেশে সূর্যাস্ত দেখতে দেখতে হাত নেড়ে বর্ষ বিদায় জানালেন লাখো পর্যটক।

সুগন্ধা পয়েন্টের পাশাপাশি দরিয়ানগর, হিমছড়ি, প্যাঁচারদ্বীপ, ইনানী, পাটোয়ারটেক ও টেকনাফ সৈকতেও পুরোনো বছরের শেষ সূর্যকে বিদায় জানান বিপুলসংখ্যক পর্যটক। কেউ প্যারাসেইলিংয়ের মাধ্যমে ২০২২ সালের শেষ সূর্যাস্ত উপভোগ করেন।

শনিবার (৩১ ডিসেম্বর) বিকেলে কুয়াকাটা সৈকতের বিভিন্ন পয়েন্ট ঘুরে দেখা যায়, মৃদু বাতাসে সৈকতের নারিকেলকুঞ্জ ও ঝাউবাগানের পত্রমালাও সাগরের ঢেউয়ের সঙ্গে দুলছে। গোটা সৈকতে জোয়ারে ভেসে আসা ছোটছোট ঝিনুক যেন কার্পেটের মতো বিছিয়ে রয়েছে পর্যটকদের স্বাগত জানাতে। সাগরের কয়েক কিলোমিটারের মধ্যে ভেসে বেড়াচ্ছে ছোটছোট পর্যটকবাহী ওয়াটার বাইক, স্পিডবোট, ট্রলার, লঞ্চ ও ডিঙি নৌকা। পূর্ব আকাশকে পেছনে ফেলে সবাই ছুটছেন পশ্চিম আকাশ পানে তাকিয়ে সৈকতে।

ঢাকা থেকে আসা রাব্বি ফায়সাল নামে এক পর্যটক বলেন, বছরের শেষ সূর্যটাকে নিজের ক্যামেরায় ধারণ করে রেখেছি। সঙ্গে ছিল পরিবার। বাচ্চারা আনন্দ করছে, খেলা করছে। কালকে সূর্যোদয় দেখবো তারপর গন্তব্যে ফিরবো। তবে এই ট্রিপটা দারুণ কাটিয়েছি।

খুলনা থেকে ফারজানা কলি নামে এক পর্যটক বলেন, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন, হোটেল-মোটেলের সুবিধা ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালো হওয়ায় কুয়াকাটা ভ্রমণ এখন অনেক সহজ। এ কারণে বছরে আমরা এখানে কয়েকবার আসি। এই বিশেষ দিনে সাক্ষী হতে পেরে বেশ ভালোই লেগেছে।

হোটেল-মোটেল কর্তৃপক্ষ ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বড়দিনের ছুটি থেকে থার্টিফার্স্ট নাইট পর্যন্ত পুরো সপ্তাহ জুড়ে পর্যটকদের আগমন ছিল চোখে পড়ার মতো। পর্যটকদের আগমনে এখানকার ব্যবসায়ীরাও বেশ ব্যস্ততায় সময় কাটিয়েছেন।

ট্যুরিস্ট পুলিশ কুয়াকাটা জোনের সহকারী পুলিশ সুপার আব্দুল খালেক বলেন, ডিসেম্বর জুড়ে পর্যটকদের চাপ ছিল। তাই সার্বিকভাবে আমরা তৎপর রয়েছি। আমাদের গোয়েন্দা সংস্থাও কাজ করছে। যাতে পর্যটকরা কোনো হয়রানির শিকার না হন।

তিনি আরও বলেন, নতুন বছরকে শুভেচ্ছা জানাতে কুয়াকাটায় যে পর্যটকরা এসেছেন তাদের সব ধরনের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

আই.কে.জে/

 

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ