spot_img
20 C
Dhaka

২৭শে জানুয়ারি, ২০২৩ইং, ১৩ই মাঘ, ১৪২৯বাংলা

তাইওয়ান সীমান্তে ৫৭টি বিমান পাঠিয়েছে পিএলএ

- Advertisement -

ডেস্ক রিপোর্ট, সুখবর ডটকম: সোমবার, সকাল ৬ টার আগে ২৪ ঘন্টার মধ্যে তাইওয়ানের কাছে ৫৭ টি বিমান এবং চারটি যুদ্ধজাহাজ পাঠিয়েছে পিএলএ।

সোমবার তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় পিএলএ বিমানের গতিপথের একটি চার্ট প্রকাশ করে। এতে দেখা যায়, ২৮ টি বিমান তাইওয়ানকে তিন দিক থেকে অবরোধ করে রেখেছে।

একটি বিবৃতিতে, মন্ত্রণালয় বলেছে যে ২৩ টি বিমান দ্বীপ ও মূল ভূখণ্ড চীনের মধ্যবর্তী রেখা অতিক্রম করেছে। এর মধ্যে রয়েছে ১২ টি জে-১৬ যুদ্ধবিমান, দুটি সুখোই এসইউ-৩০ যুদ্ধবিমান, দুটি জে-১০, ছয়টি জে-১১ এবং একটি কেজে-৫০০ পূর্ব সতর্কীকরণ বিমান।

দুটি পারমাণবিক সক্ষম এইচ-৬ বোমারু বিমান এবং তিনটি বিজেডকে-০০৫ রিকনেসেন্স ড্রোনও তাইওয়ানের দক্ষিণ-পূর্ব বিমান প্রতিরক্ষা শনাক্তকরণ অঞ্চলে প্রবেশ করেছে বলে জানিয়েছে মন্ত্রণালয়।

তাইপেইয়ের রাষ্ট্রপতির কার্যালয় সোমবার জারি করা একটি বিবৃতিতে পিএলএ মহড়ার নিন্দা করে বলেছে যে তারা আঞ্চলিক অস্থিতিশীলতাকে তীব্র করে তুলেছে।

মুখপাত্র জেভিয়ার চ্যাং এ ব্যাপারে বলেন, বিভিন্ন ভিত্তিহীন দাবিতে, কমিউনিস্ট বাহিনী সাম্প্রতিক দিনগুলিতে তাইওয়ানের চারপাশে অবিরাম সামরিক অভিযান চালাচ্ছে। তাইওয়ানের রাষ্ট্রপতির কার্যালয় চীনের এ কার্যক্রমের গুরুতর নিন্দা জানায়।

চ্যাং বলেন, তাইওয়ান প্রণালীর দুই পক্ষ এই অঞ্চলে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখার দায়িত্ব ভাগ করে নিয়েছে। তাইওয়ান কখনই সংঘাত উস্কে দেবে না বা বাড়াবে না। সেনাবাহিনীর কাছে দ্বীপটিকে এবং এর জনসাধারণকে রক্ষা করার নির্দেশ দেওয়া রয়েছে।

রবিবার রাতে মহড়ার ঘোষণা দিয়ে, পিএলএ ইস্টার্ন থিয়েটার কমান্ডের মুখপাত্র সিনিয়র কর্নেল শি ই বলেন, তাদের বাহিনী একত্রিতভাবে স্থল হামলা এবং সামুদ্রিক হামলাকে কেন্দ্র করে টহল এবং তাইওয়ানের আশেপাশে সাগর ও আকাশসীমায় প্রকৃত যুদ্ধ মহড়ার আয়োজন করেছে।

একটি লিখিত বিবৃতিতে শি বলেন, এসব কর্মকাণ্ডের উদ্দেশ্য হল যৌথ যুদ্ধের সক্ষমতা পরীক্ষা করা এবং বহিরাগত শক্তি ও তাইওয়ানের স্বাধীনতা বিচ্ছিন্নতাবাদী শক্তির উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ডকে দৃঢ়ভাবে মোকাবেলা করা।

এক মাসেরও কম সময়ের মধ্যে দ্বিতীয়বারের মতো পিএলএ তাইওয়ানের কাছে এ ধরনের অনুশীলনের আয়োজন করেছে। গত ২৫ ডিসেম্বর, তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মতে, দ্বীপের চারপাশে ৭১ টি যুদ্ধবিমান এবং চারটি জাহাজকে টহল দিতে দেখা গিয়েছিল।

তাইওয়ানের সশস্ত্র বাহিনী সমগ্র পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে এবং এই কার্যকলাপগুলোর প্রতিক্রিয়া জানাতে যুদ্ধ এবং টহল বিমান, নৌবাহিনীর জাহাজ এবং স্থল-ভিত্তিক ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থাকে দায়িত্ব দিয়েছে।

তাইওয়ানের বিমান বাহিনীর সাবেক ভাইস-কমান্ডার চ্যাং ইয়েন-টিং বলেন, বিভিন্ন বিমান ও নৌ বন্দর থেকে বিভিন্ন জাহাজগুলোকে একত্রিত করার মাধ্যমে, পিএলএ যুদ্ধ অভিযান অনুশীলন করছিল।

আই.কে.জে/

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ