spot_img
32 C
Dhaka
spot_imgspot_imgspot_imgspot_img

১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়েতে গাড়ি চলবে ৮০ কি.মি বেগে : খুলছে ২০২১-এর ডিসেম্বরে

- Advertisement -

নিজস্ব প্রতিবেদক, সুখবর ডটকম: যানজটের ধকল থেকে নগরবাসীকে মুক্তি দিতে নির্মীয়মাণ প্রায় ২০ কিলোমিটার দীর্ঘ এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে। ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের একাংশ খুলে দেওয়া হবে ২০২১ সালের ডিসেম্বরে। পুরো প্রকল্পের কাজ শেষ হবে ২০২৩ সালের জুনে। এখন প্রকল্পের প্রথম ও দ্বিতীয় ভাগের কাজ চলছে বিমানবন্দর সংলগ্ন কাওলা থেকে তেজগাঁও রেলগেট পর্যন্ত। তৃতীয় ভাগে কাজ হবে তেজগাঁও থেকে কুতুবখালী পর্যন্ত।

এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, প্রকল্পের প্রথমভাগে কাওলা থেকে বনানী রেলস্টেশন পর্যন্ত ৫৬ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। এই অংশটি চলতি বছরের ডিসেম্বরে খুলে দেওয়ার চিন্তা ছিল প্রকল্প কর্তৃপক্ষের। কিন্তু স্বল্প দূরত্ব হওয়ায় এই চিন্তা থেকে সরে এসেছে কর্তৃপক্ষ। কাওলা থেকে বনানী রেলগেট পর্যন্ত অংশে ৩৫০টি পিয়ারের মধ্যে ৩৩৩টি পিয়ার নির্মাণের কাজ শেষ। ১৫০টি গার্ডার বসানো হয়েছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে গত মার্চ থেকে প্রায় তিন মাস কাজ বন্ধ থাকায় কাজের গতি কিছুটা কমে গিয়েছিল। কিন্তু এখন পুরোদমে কাজ শুরু হওয়ায় গার্ডার তৈরির কাজও শুরু হয়েছে। সামনের তিন মাসে প্রথম ভাগের কাজ অনেকটা দৃশ্যমান হবে।

সূত্র জানায়, কাজে যাতে বিঘ্ন না ঘটে সে জন্য প্রকল্পসংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারী, প্রকৌশলী, শ্রমিক সবার থাকার ব্যবস্থা প্রকল্প এলাকাতেই করা হয়েছে। করোনা সংক্রমণ আবার ছড়িয়ে পড়লে কেউ প্রকল্প এলাকা থেকে বাইরে যেন না যান সেজন্য সব ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে।

প্রকল্প পরিচালক এ এইচ এম এস আকতার জানান, ২০২১ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে প্রকল্পের ১১ কিলোমিটারের কাজ শেষ হবে। এর পরপরই এই অংশ যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হবে। এক্সপ্রেসওয়েতে ওঠা ও নামার ৩১টি র‌্যাম থাকবে। ওঠা যাবে ১৫টি পয়েন্টে আর নামা যাবে ১৬টি পয়েন্টে। মূল এক্সপ্রেসওয়েটি হবে ১৯ দশমিক ৭৩ কিলোমিটার। এর বাইরে র‌্যাম হবে ২৭ কিলোমিটার। এক্সপ্রেসওয়ের ওপর মোট ৮টি পয়েন্টে থাকবে ৮টি টোল প্লাজা। নির্মাণকাজ শতভাগ শেষ হলে নগরীর বিমানবন্দর সংলগ্ন কাওলা থেকে একেবারে কুতুবখালী পর্যন্ত খুব স্বল্প সময়ে পৌঁছা যাবে। সময় এবং খরচ দুটোই সাশ্রয় হবে। এক্সপ্রেসওয়েতে গাড়ি চলবে ৮০ কিলোমিটার বেগে। কোনো রকম থ্রি-হুইলার উঠতে পারবে না। যানবাহনের জন্য খুলে দেওয়া হলে বিমানবন্দর থেকে ফার্মগেট, মগবাজার, পল্টন, মতিঝিল, যাত্রাবাড়ী পর্যন্ত সড়কের ওপর গাড়ির চাপ অনেকাংশে কমে যাবে। জনভোগান্তিও কমবে।

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ