spot_img
25 C
Dhaka

২৭শে নভেম্বর, ২০২২ইং, ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯বাংলা

জম্মু ও কাশ্মির পুনরুদ্ধারে ভারত যেসব সুযোগ পেয়েছে

- Advertisement -

ডেস্ক রিপোর্ট, সুখবর ডটকম: ১৯৪৭ এ ভারত-পাকিস্তান বিভক্তির পর এমন অনেক সুযোগ এসেছে যার সদ্ব্যবহার করতে পারেনি ভারত।

১৯৪৭ সালের ২২ অক্টোবর, পাকিস্তান যখন জম্মু ও কাশ্মিরে অকারণে হামলা চালায়, তখনো রাজ্যটি ভারতের সাথে সংযুক্ত ছিল না। তবে পাকিস্তানি হানাদারদের থেকে রাজ্যকে রক্ষা করার একমাত্র উপায় ভারতীয়দের কাছ থেকে সামরিক সাহায্য লাভ, এই জিনিসটি উপলব্ধি করতে পেরেই মহারাজা হরি সিং ভারতের সাথে জম্মু ও কাশ্মিরকে সংযুক্ত করেন।

১৯৪৭ সালের ২৭ অক্টোবর, বাণিজ্যিক বিমানসহ সমস্ত ভারতীয় বিমানগুলোকে জম্মু ও কাশ্মির রাজ্যের রাজধানী শ্রীনগরে নিয়ে যাওয়ার অনুরোধ করা হয়।

এ সময় বিদেশি হানাদারেরা রাজধানী শ্রীনগর থেকে মাত্র চার মাইল দূরে ছিল। কিন্তু তবুও ভারতীয় সেনারা তাদেরকে পরাজিত করে দূরে সরে যেতে বাধ্য করে।

তবে নভেম্বরের দিকে ভারতীয় সেনাদের অগ্রগতি হঠাৎ করেই থেমে যায় এবং সে সময় পাকিস্তানের দখলে যে অঞ্চলগুলো রয়ে যায় তা এখন পর্যন্ত পুনরুদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

৩১ ডিসেম্বর, ১৯৪৮ সালে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ কর্তৃক যুদ্ধবিরতির আদেশ আসলে ভারত যুদ্ধবিরতি চুক্তিতে স্বাক্ষর করে।

১৯৬৫ সালের আগস্টে, পাকিস্তান আবারও জম্মু ও কাশ্মীরের ভারতীয় ভূখণ্ডের বিরুদ্ধে অপারেশন জিব্রাল্টার শুরু করে। ১৯৬৫ সালের ৫ আগস্ট, ২০ থেকে ৩০ হাজার পাকিস্তানি সৈন্য যুদ্ধবিরতি লাইন পেরিয়ে ছিদ্রযুক্ত সীমান্ত দিয়ে জম্মু ও কাশ্মীরে অনুপ্রবেশ করে। তবে তাদের এই অপারেশন জিব্রাল্টার শোচনীয়ভাবে ব্যর্থ হয়।

১৯৬৫ সালে পাকিস্তানের অধিকৃত অংশগুলো পুনরুদ্ধারের আরো একটি সুযোগ পায় ভারত। কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের মধ্যস্থতায় যুদ্ধবিরতিতে বাধ্য হলে সে সুযোগটুকুও হারায় ভারত।

১৯৭১ সালে ভারত-পাকিস্তানের তৃতীয় যুদ্ধ সংঘটিত হয়। ভারত পূর্ব পাকিস্তানকে পাকিস্তানের সামরিক দখলমুক্ত করতে সক্ষম হলেও নিজেদের জায়গা পুনরুদ্ধার করতে পারেনি।

ভারত-পাকিস্তানের চতুর্থ যুদ্ধ হয় ৩ মে থেকে ২৬ জুলাই, ১৯৯৯ সালে, যা ইতিহাসে কার্গিল যুদ্ধ নামে পরিচিত। তবে অবশ্যই মনে রাখা উচিত, ভারত কখনোই স্বেচ্ছায় পাকিস্তানকে আক্রমণ করেনি। বরং পাকিস্তান সবসময়ই ভারতে অনুপ্রবেশ করে ভারতকে আক্রমণ করেছে।

কার্গিল যুদ্ধের সময়, পাকিস্তানি সৈন্যরা কাশ্মিরের জঙ্গীদের পোশাক পরে ভারতের লাদাখের কার্গিলে অনুপ্রবেশ করে। ভারতীয় সেনাবাহিনী তাদের প্রতিহত করতে গেলে পাকিস্তানিদের হাতে নির্মমভাবে নিহত হয়।

এ যুদ্ধে ভারত জয়লাভ করে ১৯৯৯ সালের ২৬ জুলাই। কিন্তু পাকিস্তান গিলগিট বাল্টিস্তানকে নিজের দখলে নিয়ে নেয় এবং ভারত নিজেদের ভূমি উদ্ধারের আরো একটি সুযোগ হারায়।

আজ, ভারতের অন্তর্গত অঞ্চলগুলো পাকিস্তানের অবৈধ দখলে রয়েছে। পাকিস্তানি দখলদারিত্বে বসবাসকারী স্থানীয়দের সঙ্গে পাকিস্তান রাষ্ট্রের সম্পর্ক হচ্ছে দাস ও প্রভুর। তবুও এখানকার জনগণ অত্যন্ত সাহসী ও তাদের অধিকার আদায়ে সোচ্চার। তারা চুপচাপ বসে নিজেদের উপর হওয়া অত্যাচার সহ্য করে না।

পাকিস্তান অধিকৃত জম্মু কাশ্মির ও গিলগিট বাল্টিস্তানের জনগণ পাকিস্তানি দখলদারিত্বে থাকতে চাইছে না এবং এটিই ভারতকে আরো একটি সুযোগ করে দিচ্ছে নিজের জায়গা পুনরুদ্ধার করার। ভারতের এই সুযোগের সদ্ব্যবহার করা উচিত এবং কোনক্রমেই এই সুযোগ হারানো উচিত নয় বলে মনে করেন ভারতীয় রাজনীতিক ও সাধারণ নাগরিকরা

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ