spot_img
19 C
Dhaka

৫ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ইং, ২২শে মাঘ, ১৪২৯বাংলা

চলতি বছরই রেল যাবে কক্সবাজার

- Advertisement -

নিজস্ব প্রতিবেদক, সুখবর ডটকম: পর্যটন শহর কক্সবাজারে যাতায়াত সহজ করতে দ্রুতগতির ট্রেন চালুর কাজ এগিয়ে চলেছে। চলতি বছরের জুন থেকে অক্টোবরের মধ্যে প্রথমবারের মতো ঢাকা-কক্সবাজার পথে এই রেল যোগাযোগ শুরু হওয়ার আশা করছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। তারা জানিয়েছেন, ইতিমধ্যে প্রকল্পের কাজ ৮০ ভাগ শেষ হয়েছে।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানান, ১০০ কিলোমিটার রেলপথে সাতকানিয়া, লোহাগাড়া, চকরিয়া, ডুলাহাজারা, ঈদগাঁও, রামু, কক্সবাজার সদরসহ স্টেশন থাকছে আটটি। এ জন্য সাঙ্গু, মাতামুহুরী ও বাঁকখালী নদীর ওপর নির্মাণ করা হয়েছে তিনটি বড় সেতু। এছাড়া রেলপথে তৈরি হয়েছে ৪৩টি ছোট সেতু, ২০১টি কালভার্ট ও ১৪৪টি লেভেল ক্রসিং। সাতকানিয়ার কেঁওচিয়া এলাকায় তৈরি হচ্ছে একটি ফ্লাইওভার, রামু ও কক্সবাজার এলাকায় দুটি হাইওয়ে ক্রসিং। হাতি ও অন্যান্য বন্যপ্রাণীর চলাচলে ৫০ মিটারের একটি ওভারপাস ও তিনটি আন্ডারপাস নির্মাণ করা হচ্ছে।

সরেজমিন দেখা গেছে, কক্সবাজার সদর থেকে ৭ কিলোমিটার পূর্ব-উত্তরে ঝিলংজা ইউনিয়নের হাজীপাড়া এলাকায় ২৯ একর জমির ওপর নির্মাণ করা হচ্ছে দৃষ্টিনন্দন আইকনিক রেলস্টেশন। স্টেশনটিকে সৈকতের ঝিনুকের আদলে তৈরি করা হচ্ছে। স্টেশন ভবনটির আয়তন ১ লাখ ৮২ হাজার বর্গফুট। ছয়তলা ভবনটির বিভিন্ন অংশে অবকাঠামো নির্মাণের কাজ চলমান আছে। নির্মাণাধীন আইকনিক ভবন ঘেঁষে ৬৫০ মিটার দৈর্ঘ্য ও ১২ মিটার প্রস্থের তিনটি প্ল্যাটফরম তৈরি হচ্ছে। এর পাশেই গড়ে উঠছে রেলওয়ের আবাসিক এলাকা। সেখানে আটটি ভবনের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। স্টেশনটিতে আবাসিক হোটেলের পাশাপাশি ক্যান্টিন, লকার, গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে। পর্যটকরা স্টেশনের লকারে লাগেজ রেখে সারা দিন সমুদ্রসৈকতে বা দর্শনীয় স্থানে ঘুরতে পারবেন। এই স্টেশন দিয়ে দিনে ৪৬ হাজার মানুষ আসা যাওয়া করতে পারবেন।

প্রকল্প পরিচালক মফিজুর রহমানের মতে, ১০০ কিলোমিটার রেললাইনের ইতিমধ্যে ৫০ কিলোমিটারের বেশি দৃশ্যমান। বেশির ভাগ ব্রিজ-কালভার্ট নির্মাণ শেষ হয়েছে। বাকিগুলো আগামী কয়েক মাসেই শেষ হবে। গত ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রকল্পের অগ্রগতি ৮০ শতাংশ। প্রকল্পের মেয়াদ আছে ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত। তবে, আমরা চেষ্টা করছি ২০২৩ সালের জুন-অক্টোবরের মধ্যে কাজ শেষ করতে। একই সঙ্গে রেলস্টেশনগুলোর নির্মাণকাজও চলমান আছে।

কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ শাহীন ইমরান গণমাধ্যমকে বলেন, পর্যটন নগরীর সঙ্গে রেল যোগাযোগের স্বপ্ন বাস্তবায়নের দ্বারপ্রান্তে। ২০১৮ সালে ডুয়েল গেজ ও সিঙ্গেল ট্র্যাক রেললাইন প্রকল্পের নির্মাণকাজ শুরু হয়। দোহাজারী থেকে কক্সবাজার রামু পর্যন্ত ১০০ কিলোমিটার রেললাইন নির্মাণে প্রথমে ব্যয় ধরা হয় এক হাজার ৮৫২ কোটি টাকা। ২০১৬ সালে প্রকল্প প্রস্তাব সংশোধন করা হয়। তখন ব্যয় বেড়ে দাঁড়ায় ১৮ হাজার ৩৪ কোটি ৪৭ লাখ টাকা। এই প্রকল্পে অর্থায়ন করেছে এশিয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) ও বাংলাদেশ সরকার।

সম্প্রতি চলমান প্রকল্পের কাজ পরিদর্শন শেষে রেলপথ মন্ত্রী মো. নুরুল ইসলাম সুজন সাংবাদিকদের বলেন, চলতি বছরের জুন থেকে অক্টোবরের শেষ নাগাদ দোহাজারী-কক্সবাজার রেললাইন চালু হবে। তখন ট্রেনে চড়ে সরাসরি কক্সবাজারে যাবে মানুষ। একসময়ের স্বপ্ন, এখন বাস্তবায়নের পথে। তিনি আরো বলেন, কক্সবাজারের জন্য টুরিস্ট কোচের আদলে উন্নতমানের ট্রেন চালানো হবে। এজন্য নতুন এ প্রকল্পের আওতায় ৫৪টি কোচ কেনা হবে। যার জানালা সুপ্রশস্ত। মানুষ অনায়াসে প্রাকৃতিক দৃশ্য দেখার সুযোগ পাবে।

এম/

আরো পড়ুন:

নতুন বছরে বাড়ছে রেমিট্যান্স প্রবাহ

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ