spot_img
27 C
Dhaka
spot_imgspot_imgspot_imgspot_img

৫ই অক্টোবর, ২০২২ইং, ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯বাংলা

গ্যাসের বিকল্পের খোঁজে নাইজেরিয়ায় চোখ ইইউর

- Advertisement -

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, সুখবর বাংলা:  রাশিয়া থেকে সরবরাহ বন্ধের শঙ্কায় নাইজেরিয়া থেকে বাড়তি গ্যাস আমদানির চেষ্টা চালাচ্ছে ইউরোপের ২৭টি দেশের জোট ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। স্থানীয় সময় গতকাল শনিবার ইউরোপীয় কমিশনের জ্বালানি বিভাগের সহকারী মহাপরিচালক ম্যাথিউ বালডউইন এ পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন। খবর রয়টার্সের।

এ সপ্তাহে নাইজেরিয়া সফরকালে আফ্রিকার সর্ববৃহৎ তেল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকের সময় ম্যাথিউ বালডউইন এ কথা বলেন।

তিনি জানান, তাঁকে বলা হয়েছে, নাইজার বদ্বীপের নিরাপত্তা পরিস্থিতির উন্নতি ঘটাচ্ছে নাইজেরিয়া। তারা আগামী আগস্টের পর ট্রান্স নাইজার পাইপলাইন আবার চালু করার পরিকল্পনা করছে। পাইপলাইনটি আবার চালু হলে দেশটি থেকে ইউরোপে গ্যাস রপ্তানি বাড়বে।

বাল্ডউইন মুঠোফোনে রয়টার্সকে বলেছেন, ইউরোপের তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাসের (এলএনজি) মোট চাহিদার ১৪ শতাংশ নাইজেরিয়া থেকে আমদানি করা হয়। তবে আমদানির পরিমাণ দ্বিগুণ করার যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে।

চুরি ও পাইপলাইন ভেঙে দেওয়ার কারণে নাইজেরিয়া তাদের সামর্থ্য অনুযায়ী তেল ও গ্যাস উৎপাদন ও রপ্তানি করতে পারে না। তাই দেশটির গ্যাস উৎপাদক প্রতিষ্ঠান নাইজেরিয়া এলএনজি বনি দ্বীপের টার্মিনালে সক্ষমতার ৬০ শতাংশ তেল উৎপাদন করতে পারে।

ম্যাথিউ বাল্ডউইন বলেন, ‘আমরা যদি এই পর্যায়ে সেটা ৮০ শতাংশ পর্যন্ত উৎপাদন বাড়াতে পারি, তাহলে কার্গোতে করে সমুদ্রপথে ইউরোপে আরও বেশি গ্যাস আনা সম্ভব হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘তাঁরা (নাইজেরিয়ার কর্মকর্তারা) আমাদের আগস্টের শেষে আলোচনার জন্য আবার নাইজেরিয়া সফরের আহ্বান জানিয়েছে। এর মধ্যে সত্যিকার অগ্রগতি হওয়ার আশ্বাস দিয়েছে নাইজেরিয়া।’

নাইজেরিয়ার এনএলজির মালিকানা রাষ্ট্রায়ত্ত তেল কোম্পানি এমএনপিসি লিমিটেড এবং শেল, টোটাল এনআরজি ও ইনির।

ইউরোপে চলছে গ্যাসসংকট। গত বুধবার ইউরোপীয় কমিশন সতর্কতা জারি করে জানিয়েছে, আগামী আগস্ট থেকে মার্চ পর্যন্ত গ্যাসের ব্যবহার কমানো উচিত ইইউ সদস্যদেশগুলোর। প্রাথমিকভাবে এটা স্বেচ্ছায় করতে হবে। অর্থাৎ, বাধ্যবাধকতা নেই। তবে কমিশন যদি জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণা করে, তাহলে এটা বাধ্যতামূলক হয়ে যাবে।

বাল্ডইউন বলেছেন, গত বছর ইইউ সদস্য দেশগুলোতে ২ হাজার ৩০০ কিউবিক মিটার গ্যাস রপ্তানি করেছে নাইজেরিয়া। তবে প্রতিবছর নাইজেরিয়া থেকে ইইউতে গ্যাস রপ্তানি কমছে। ২০১৮ সালে নাইজেরিয়া থেকে ৩ হাজার ৬০০ কোটি কিউবিক মিটার তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস কিনেছিল ইইউ।

আরো পড়ুন:

শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্টের অফিস খুলছে সোমবার

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ