spot_img
30 C
Dhaka
spot_imgspot_imgspot_imgspot_img

১লা অক্টোবর, ২০২২ইং, ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯বাংলা

কোলেস্টরাল ও ব্লাড সুগার দূরে রাখবে জিরা

- Advertisement -

নিজস্ব প্রতিবেদক, সুখবর বাংলা: বাঙালীর রান্নাঘরে জিরা খুবই প্রচলিত ও পরিচিত মশলা ৷ জিরা রাইস, নানারকমের ডাল, তরকারি থেকে মাছের ঝোল-জিরার স্বাদে ও গন্ধে হয়ে ওঠে অতুলনীয় ৷ স্বাদের পাশাপাশি জিরার রয়েছে বহু গুণ৷ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি উপাদানে ভরা জিরা গ্যাস,বদহজম কমাতে কার্যকর ৷ হজমের সমস্যা কমিয়ে শরীরকে হাল্কা অনুভূতি দেয় জিরা ৷

রান্নায় মশলা হিসেবে খাওয়ার থেকে জিরার গুণ সবচেয়ে ভাল পাওয়া যায় যদি প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে জিরা ভেজানো পানি খেলে ৷ এক চামচ জিরা নিয়ে মিশিয়ে রাখুন দেড় কাপ পানিতে ৷ সঙ্গে মেশাতে পারেন অর্ধেক চামচ মধু ও৷ এ বার হালকা আঁচে গরম করুন এই মিশ্রণটি ৷ তার পর নামিয়ে ঢাকা দিয়ে আরও ৩-৫ মিনিট রেখে দিন ৷ ছেঁকে নিয়ে পান করুন ৷

জিরার উপাদান শরীরে কাজ করে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট হিসেবে ৷ জিরার এপিজেনিন ও লুটেওলিন শরীরের কোষকে সুস্থ রাখে ৷ অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট শরীরকে কর্মশক্তি যোগায় ৷ ত্বকে বয়সের ছাপ পড়তে দেয় না৷

জিরা পানি পান করলে নিয়ন্ত্রিত থাকে রক্তে শর্করার পরিমাণ ৷ ডায়বেটিস রোগীর শারীরিক অবস্থাও ভাল রাখে জিরা পানি ৷ জিরা তেলের অংশ কাজ করে হাইপোগ্লাইসেমিক উপাদান হিসেবে ৷

রক্তে কোলেস্টেরলকে নিয়ন্ত্রিত করে হৃদযন্ত্রকে সুস্থ রাখে জিরা পানি ৷ এই মশলার হাইপোলিপিডেমিক উপাদান রক্তে এলডিএল কোলেস্টেরল কমিয়ে দেয় ৷

পরিপাক ক্রিয়া নিয়ন্ত্রণে রাখতে জিরা জুড়ি মেলা ভার ৷ যারা সবসময়ই পেটের সমস্যায় ভোগেন বা যারা ইরিটেবল বাওয়েল সিন্ড্রোম বা ইবিএস-এ আক্রান্ত, তাদের ডায়েটে জিরার উপস্থিতি বাধ্যতামূলক ৷ এতে হজম ভাল হয় ৷ দূর হয় কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যা৷

আরো পড়ুনঃ

“সয়াবিন বড়ি শুধু সুস্বাদু নয়! পুষ্টি গুণেও ভরপুর

 

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ