spot_img
26 C
Dhaka

২৬শে নভেম্বর, ২০২২ইং, ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯বাংলা

সর্বশেষ
***বিজয়ের মাসে ২টি প্রদর্শনী নিয়ে আসছে বাতিঘরের নাটক ‘ঊর্ণাজাল’***মহিলা আওয়ামী লীগের নতুন সভাপতি চুমকি, সাঃ সম্পাদক শবনম***সরকার নারীদের উন্নয়নে কাজ করে চলেছে : মহিলা আ. লীগের সম্মেলনে শেখ হাসিনা***তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া কোনো নির্বাচন হতে দেয়া হবে না : কুমিল্লায় মির্জা ফখরুল***দেশে আর ইভিএমে ভোট হতে দেওয়া হবে না : রুমিন ফারহানা***রংপুর সিটি নির্বাচনে অপ্রীতিকর কিছু ঘটলে ভোটগ্রহণ বন্ধ করে দেয়া হবে : নির্বাচন কমিশনার***সৌদি আরবে চলচ্চিত্র উৎসবে সম্মাননা পাচ্ছেন শাহরুখ খান***ভূমি অফিসে সরাসরি ঘুস গ্রহণের ভিডিও ভাইরাল***আজ মাঠে নামলেই ম্যারাডোনার যে রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলবেন মেসি***স্বাধীনতা কাপের সেমিফাইনালে শেখ রাসেল

ঐন্দ্রিলার কপালে চন্দন পরিয়ে, পায়ে শেষ চুম্বন করলেন প্রেমিক সব্যসাচী

- Advertisement -

বিনোদন ডেস্ক, সুখবর ডটকম: ঐন্দ্রিলা শর্মা পুরো ২০টা দিন যুদ্ধ করে ক্লান্ত হয়ে মৃত্যুর সাথে আলিঙ্গন করেছেন। প্রেমিক সব্যসাচী চৌধুরী কথা দিয়েছিলেন যে, তিনিই নিয়ে এসেছেন আর তিনিই ফিরিয়ে নিয়ে যাবেন। কিন্তু সব্যসাচি পারলেন না। নিয়তির খেলায় পারলেন না তাকে ধরে রাখতে। ভালোবাসার মানুষকে হারিয়ে শোকে পাথর হয়ে গিয়েছেন অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মার ‘কাছের মানুষ’ সব্যসাচী চৌধুরী। রবিবার দুপুর ১২টা ৫৯ মিনিটে হৃদয় ভেঙে খানখান হয়ে গিয়েছে সব্যসাচীর।

বুকে করে আগলে রেখেছিলেন ঐন্দ্রিলাকে, কিন্তু ঐন্দ্রিলা ধীরে ধীরে সব্যসাচীর থেকে দূরে, আরো বহুদূরে চলে যাচ্ছিল। ক্যান্সারকে হারাতে পারলেও অবশেষে ব্রেন স্ট্রোকে পীড়িত হয়ে বিদায় নিলেন ঐন্দ্রিলা। মাত্র ২৪ বছরের অভিনেত্রীর এই মৃত্যু কেউই মেনে নিতে পারছেন না।

মৃত্যুর খবর পেয়ে ঢল নামে অনুরাগীদের। সেখান থেকে তাকে কুদঘাটের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হলে শেষ পলক দেখার জন্য ভিড় জমান আরো অনেকে। আর এসবের মধ্যে সর্বক্ষণই উপস্থিত ছিলেন সব্যসাচী। একদম নীরব, নিশ্চুপ।

ঐন্দ্রিলার শেষযাত্রার আগে তার সাথে একান্তে সাক্ষাৎ করলেন সব্যসাচী। ঐন্দ্রিলার কপালে নিজে হাতে চন্দন পরিয়ে দেন তার লড়াইয়ের সবসময়ের সঙ্গী সব্যসাচী। একটি ভিডিওতে এমন দৃশ্যই ধরা পড়েছে। যা দেখে আবেগতাড়িত হয়েছেন বহু মানুষ।

ঐন্দ্রিলার গায়ে, পায়ে চুম্বন করে শেষ বিদায় জানালেন প্রিয়তমাকে। মনে মনে কী চাইলেন জানা যায়নি অবশ্য, তবে শেষ বারের মত প্রেমিকার স্পর্শ নিয়ে রাখলেন। প্রথম দিন থেকে যেভাবে আগলে রেখেছিলেন, তাতে এই বিচ্ছেদ যন্ত্রণা তাকে সবচেয়ে বেশি আঘাত দিয়েছে।

কেওড়াতলাতে দাহ করা হয় অভিনেত্রীকে। রাত্রি পৌনে আটটা নাগাদ সম্পূর্ণ হয় শেষকৃত্য। সেখানে অনুরাগী বা সংবাদমাধ্যমের কোনও প্রতিনিধিকে ঢুকতে দেওয়া হয়নি।

শুধু ছিলেন পরিবারের সদস্য আর মন্ত্রীরা। সূত্রের খবর, ঐন্দ্রিলার বাবার সাথে তাঁর মুখাগ্নি করেছেন সব্যসাচীও। নিজের প্রাণপ্রিয়াকে এভাবেই শেষ বিদায় জানালেন সব্যসাচী চৌধুরী।

দু’বার মারণরোগের সঙ্গে লড়াই করে যেন ‘ফিনিক্স’ হয়ে ফিরেছিলেন ঐন্দ্রিলা। গত ১ নভেম্বর ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে যখন হাওড়ার এক হাসপাতালে ভর্তি করানো হল ঐন্দ্রিলাকে, তখনও পাশে ছিলেন সব্যসাচী। সমাজমাধ্যমে ক্রমাগত ঐন্দ্রিলার স্বাস্থ্যের খবর দিচ্ছিলেন। এমনকি, অলৌকিক কিছু যাতে ঘটে, তার জন্য প্রার্থনা করার আর্জিও জানিয়েছিলেন তিনি।

সূত্র : আনন্দবাজার

এসি/আইকেজে

আরো পড়ুন:

কেন ভারতীয় নারীরা বেশি ওয়েস্টার্ন পোশাক পরে : জানতে চাইলেন জয়া বচ্চন

 

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ