spot_img
33 C
Dhaka
spot_imgspot_imgspot_imgspot_img

৭ই অক্টোবর, ২০২২ইং, ২২শে আশ্বিন, ১৪২৯বাংলা

সর্বশেষ

উয়েফা কনফারেন্স লিগ: মরিনহোর সামনে ইতিহাসের হাতছানি

- Advertisement -

ক্রীড়া ডেস্ক, সুখবর বাংলা: দারুণ রেকর্ডের সামনে দাঁড়িয়ে জোসে মরিনহো। আজ জয় পেলেই ইতিহাসে নাম লিখিয়ে ফেলবেন। ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবলে যে কৃতিত্ব আর কারো নেই, সেটা করে দেখাতে এএস রোমার হয়ে আজ আরেকটা জয় চাই তার। চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতেছেন দুবার। জিতেছেন ইউরোপা ক্লাব। আজ ডাচ ক্লাব ফেইনুর্ডকে হারালেই উয়েফা কনফারেন্স কাপটাও জেতা হয়ে যাবে। স্পেশাল এক রেকর্ডের সামনে দাঁড়িয়ে স্বঘোষিত স্পেশাল ওয়ান।

এক সময় যেসব কোচদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে লড়াই করতেন, সেই পেপ গার্দিওলা, ইয়ুর্গেন ক্লপ কিংবা কার্লো আনচেলত্তির চেয়ে জোসে মরিনিও খানিকটা পিছিয়েই গিয়েছেন। গার্দিওলা-ক্লপ এখনও ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে প্রতি মৌসুম শিরোপার জন্য হাড্ডাহাড্ডি লড়াই করেন, আনচেলত্তি আর ক্লপ কিছুদিন পরেই লড়বেন ইউরোপের সর্বোচ্চ প্রতিযোগিতা চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতার সম্মান অর্জন করে নেওয়ার লক্ষ্যে।

কিন্তু মরিনহো ? চেলসি, রিয়াল মাদ্রিদ কিংবা ইন্টার মিলানের হয়ে একের পর এক সাফল্য পাওয়া এই কোচ খানিকটা আড়ালেই পড়ে গিয়েছেন যেন। চেলসি, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড কিংবা টটেনহামের পাট চুকিয়ে ফিরে গেছেন ইতালিতে, দায়িত্ব নিয়েছেন এএস রোমা।

যে কোচ দুটি আলাদা আলাদা ক্লাবের হয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতার কৃতিত্ব রচনা করেছিলেন এককালে, সেই কোচই এখন রোমাকে নিয়ে লড়াই করেন তৃতীয় সারির ইউরোপীয় প্রতিযোগিতা উয়েফা কনফারেন্স লিগ জেতার লক্ষ্যে। সম্মান ও মর্যাদার দিক দিয়ে যে শিরোপাটা চ্যাম্পিয়নস লিগের মতো শীর্ষস্থানীয় প্রতিযোগিতার তুলনায় বেশ খানিকটা পিছিয়েই।

এবার সে প্রতিযোগিতারই ফাইনালে রোমাকে তুলেছেন মরিনিও। প্রতিপক্ষ ডাচ ক্লাব ফেইনুর্দ। আজ দিবাগত রাত একটায় আলবেনিয়ার অ্যারেনা কমবাতেরেতে কনফারেন্স লিগের শিরোপা জেতার জন্য লড়বে এই দুই ক্লাব। আর ম্যাচটা জিতলেই, ইতিহাসের অংশ হয়ে যাবেন মরিনহো। প্রথম কোচ হিসেবে তিনটি আলাদা আলাদা পর্যায়ের ইউরোপীয় শিরোপা জেতার কৃতিত্ব গড়বেন তিনি। এফসি পোর্তো আর ইন্টারকে দুবার চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতিয়েছিলেন আগেই, পোর্তো আর ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে জিতিয়েছেন উয়েফা কাপও (বর্তমানে যা ইউরোপা লিগ নামে পরিচিত)।

বাকি ছিল শুধু এই কনফারেন্স লিগটাই। সে চক্রও পূরণ হয়ে যাবে যদি আজ ফেইনুর্দকে হারাতে পারে রোমা। এর আগে তিনটি আলাদা আলাদা দলকে নিয়ে চারবার ইউরোপীয়ান প্রতিযোগিতার ফাইনালে উঠে জয়ের স্বাদ পেয়েছেন মরিনিও। লক্ষ্য এবার পরিসংখ্যানটা আরেকটু সমৃদ্ধ করা। মরিনহোর নিজের মাথাতেও বেশ ভালোভাবেই ঘুরছে বিষয়টা, ‘আমি জিতলে প্রত্যেকটা ইউরোপিয়ান শিরোপা জেতা প্রথম কোচ হব। যদি আমি জিতি আরকি।’

২০০৩ সালে স্কটিশ ক্লাব সেল্টিককে হারিয়ে মরিনিওর পোর্তো উয়েফা কাপ জেতে। পরের বছরই ফরাসি ক্লাব মোনাকোকে হারিয়ে জিতে নেয় চ্যাম্পিয়নস লিগ। ২০১০ সালে বায়ার্ন মিউনিখকে হারিয়ে ইন্টারকে মিলানের মাধ্যমে দ্বিতীয়বারের মতো চ্যাম্পিয়নস লিগের স্বাদ পান মরিনিও। ২০১৭ সালে আয়াক্সকে হারিয়ে মরিনহোর ইউনাইটেড জেতে ইউরোপা লিগ।

তবে রোমা ফাইনাল জিতুক বা না জিতুক, নিজে ইতিহাসের অংশ হন বা না হন, মরিনহোর কাছে এই মৌসুমে দলের পারফরম্যান্স বেশ ইতিবাচক মনে হচ্ছে, ‘আমি কোনো জাদুমন্ত্রের ওপর বিশ্বাস করি না। ফাইনালে ওঠার পর এখন আর ওভাবে বিশেষ কিছু করার নেই। শুধু একটা দল হয়ে খেলতে হবে আমাদের। নিজেদের সামর্থ্যের ওপর আস্থা রাখতে হবে, সীমাবদ্ধতাগুলো জেনে রাখতে হবে। ফাইনালে যা-ই হোক না কেন, মৌসুমটা আমাদের জন্য বেশ ইতিবাচক ছিল।’

আরো পড়ুন:

মুশফিকের সাফল্যের রহস্য জানালেন সিডন্স

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ