spot_img
20 C
Dhaka

৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ইং, ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯বাংলা

সর্বশেষ
***অসাধু ব্যবসায়ীদের জেলে পাঠানোর হুঁশিয়ারি দিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী***ইইউতে পোশাক রপ্তানিতে চীনকে ছাড়িয়ে গেছে বাংলাদেশ***চীনের লকডাউন নীতি প্রভাব ফেলছে রপ্তানি-জ্বালানি শিল্পের ওপর***বিশ্বকাপে দল না থাকলেও মাঠে দর্শকের তালিকায় দ্বিতীয় ভারত***চীনা ভ্যাকসিনের অকার্যকারিতার পরও বিদেশি ভ্যাকসিন নিতে অস্বীকৃতি চীন সরকারের***পাকিস্তানে সন্ত্রাসী হামলায় তিন পুলিশ সদস্য নিহত***চীনের শূন্য কোভিড নীতি প্রভাব ফেলেছে অর্থনীতিতে***মিরাজ-মুস্তাফিজ জুটিতে টাইগারদের ঐতিহাসিক জয়***শিক্ষক নিয়োগ দেবে রোকেয়া বেগম ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ***শিক্ষক নিয়োগ দেবে বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাবলিক কলেজ

ঈদে চাহিদা ৯৭ লাখ ৭৫ হাজার, পশু আছে ১ কোটি ২১ লাখ: প্রাণিসম্পদমন্ত্রী

- Advertisement -

নিজস্ব প্রতিবেদক, সুখবর বাংলা: মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, পবিত্র ঈদুল আজহায় ৯৭ লাখ ৭৫ হাজার কোরবানির পশুর চাহিদা রয়েছে। এ চাহিদা মেটানোর জন্য ১ কোটি ২১ লাখ ২৪ হাজার ৩৮৯টি গবাদিপশু প্রস্তুত রাখা হয়েছে, যাতে কোনেভাবে পশুর সংকট না হয়।

রোববার কোরবানির পশু বিক্রির অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ‘ডিজিটাল হাট ২০২২’ (digitalhatt.gov.bd)–এর অনলাইন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। রাজধানীর বেইলি রোডের সরকারি বাসভবন থেকে যুক্ত হন মন্ত্রী।

তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগের এটুআই ও একশপ এবং ই-ক্যাব যৌথভাবে এ অনুষ্ঠান আয়োজন করে।

শ ম রেজাউল করিম বলেন, অনলাইনে গবাদিপশু ক্রয়ের ক্ষেত্রে যাতে কেউ প্রতারণার শিকার না হন, সেটি লক্ষ রাখতে হবে। ডিজিটাল হাটের সঙ্গে সম্পৃক্ত এটুআই, একশপ, ই-ক্যাবসহ অন্যান্য ফোরাম সম্মিলিতভাবে সেটি নিশ্চিত করবে, যাতে মানুষের আস্থা বাড়ে। যদি কেউ প্রতারিত হন, তাঁরা আগামী বছর এ প্রক্রিয়ার সঙ্গে সংযুক্ত হতে আগ্রহী হবেন না।

প্রাণিসম্পদমন্ত্রী বলেন, একসময় ভারত-মিয়ানমার থেকে পশু না এলে কোরবানির পশু নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকতে হতো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ যে এগিয়ে চলেছে, তার অন্যতম অধ্যায় প্রাণিসম্পদ বিভাগের বৈপ্লবিক পরিবর্তন। এখন চাহিদার চেয়ে উদ্বৃত্ত পশু বাংলাদেশে উৎপাদিত হচ্ছে।

শ ম রেজাউল করিম আরও বলেন, কোরবানির পশু ব্যবস্থাপনা নিয়ে একসময় নানা বিড়ম্বনা ও বিভিন্ন রকম প্রতিকূল অবস্থা ছিল। সেটা তথ্যপ্রযুক্তি আধুনিকায়নের মাধ্যমে অনেক সহজ করে দিয়েছে। অনলাইনে পশু ক্রয়ের পর যদি কারও মনঃপূত না হয়, সে ক্ষেত্রেও তার প্রতিকারের ব্যবস্থা রয়েছে। আর্থিক লেনদেনের জন্য স্মার্টকার্ডসহ অন্যান্য অ্যাপসের মাধ্যমে ব্যবস্থা গ্রহণের সুযোগ রাখা হয়েছে। এটি বিশ্বের বুকে বাংলাদেশের সমৃদ্ধ ডিজিটাল দেশে রূপান্তর হওয়ার দৃশ্যমান অবস্থা তুলে ধরেছে।

শ ম রেজাউল করিম আরও বলেন, গত বছর অনলাইনে ৩ লাখ ৭৫ হাজার গবাদিপশু বিক্রি হয়েছে। করোনা পরিস্থিতির কারণে অনেকেই কোরবানির জন্য আগ্রহী হননি। এ বছর আশা করা হচ্ছে, আরও বেশি গবাদিপশু বিক্রি হবে।

তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব এন এম জিয়াউল আলম ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব তপন কান্তি ঘোষ।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. হাফিজুর রহমান ও এ এইচ এম শফিকুজ্জামান, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের যুগ্ম সচিব দেওয়ান মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহে আলম, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের ন্যাশনাল অ্যাগ্রিকালচারাল টেকনোলজি-২ প্রকল্পের পরিচালক আ ন ম গোলাম মহিউদ্দিন, ইউএনডিপির জাতীয় প্রকল্প ব্যবস্থাপক কাজল চ্যাটার্জী, ই-ক্যাবের সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুল ওয়াহেদ তমাল প্রমুখ। ই-ক্যাবের সভাপতি শমী কায়সার অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন। ডিজিটাল হাট প্ল্যাটফর্ম নিয়ে উপস্থাপন করেন এটুআইয়ের হেড অব ই-কমার্স রেজওয়ানুল হক জেমি।

আরো পড়ুন:

পদ্মা সেতুতে মা-বোনের সঙ্গে উচ্ছ্বসিত জয়

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ