spot_img
31 C
Dhaka
spot_imgspot_imgspot_imgspot_img

২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ইং, ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯বাংলা

সর্বশেষ
***বিশ্ব হার্ট দিবস আজ***জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়: স্নাতক ভর্তির সর্বশেষ রিলিজ স্লিপের মেধাতালিকা প্রকাশ ২ অক্টোবর***হেপাটোলজি এ্যালামনাই এসোসিয়েশনের উদ্যোগে লিভার ট্রানপ্লান্টেশন বিষয়ক আন্তর্জাতিক সেমিনার অনুষ্ঠিত***নাগরিকদের রাশিয়া ছাড়তে বলল মস্কোর মার্কিন দূতাবাস***‘সোনার তরী’র আজকের শিল্পী ইশরাত জাহান***নভেম্বরের শেষ সপ্তাহে জাপান যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী***‘বাঁশরী’তে আজ গাইবেন পূরবী বিশ্বাস এবং মালিহা তাসফিয়া রোদেলা***টিভিতে দেখুন আজকের খেলা***আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ আবারো বিজয়ী হবে: কাদের***শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিনে বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের বিভিন্ন কর্মসূচি পালন

আজ প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের জন্মদিন

- Advertisement -

নিজস্ব প্রতিবেদক, সুখবর বাংলা: বাংলাদেশের ফরিদপুর জেলার কৃতিসন্তান প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক,কবি,নাট্যকার ও উপন্যাসিক সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়।

ছিলেন একজন বিশ শতকের শেষভাগে সক্রিয় একজন প্রথিতযশা বাঙালি সাহিত্যিক। ২০১২ খ্রিষ্টাব্দে মৃত্যুর পূর্ববর্তী চার দশক সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় বাংলা সাহিত্যের অন্যতম পুরোধা ব্যক্তিত্ব হিসাবে সর্ববৈশ্বিক বাংলা ভাষাভাষী জনগোষ্ঠীর কাছে ব্যাপকভাবে পরিচিত ছিলেন।

বাংলাভাষী এই ভারতীয় সাহিত্যিক একাধারে কবি, ঔপন্যাসিক, ছোটোগল্পকার, সম্পাদক, সাংবাদিক ও কলামিস্ট হিসাবে অজস্র স্মরণীয় রচনা উপহার দিয়েছেন। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় আধুনিক বাংলা কবিতার জীবনানন্দ-পরবর্তী পর্যায়ের অন্যতম প্রধান কবি।

কিংবদন্তি কথাসাহিত্যিক সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের আজ জন্মদিন । ‘সুখবর বাংলা’ গভীর শ্রদ্ধা ভরে স্মরণ করে তাঁর আত্মার শান্তি কামনা করছে।

বাংলাদেশের ফরিদপুর জেলায় ১৯৩৪ সালের ৭ সেপ্টেম্বর তিনি জন্মগ্রহণ করেন। আর মৃত্যুবরণ করেন কলকাতায় ২০১২ সালের ২৩ অক্টোবর।

তার কবিতার বহু পঙ্‌ক্তি সাধারণ মানুষের মুখস্থ। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় “নীললোহিত”, “সনাতন পাঠক”, “নীল উপাধ্যায়” ইত্যাদি ছদ্মনাম ব্যবহার করেছেন তার রচনাবলীতে।

তাঁর জন্ম বাংলাদেশে হলেও তিনি চার বছর বয়সে কলকাতায় চলে আসেন এবং তিনি বড় হয়েছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গে। পড়াশোনা করেছেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে। বাবা ছিলেন স্কুল শিক্ষক। ব্যাংকের পিয়নের চেয়েও স্কুল মাস্টারের বেতন ছিল কম। তাঁর মা কখনোই চাননি ছেলে শিক্ষকতা করুক।

কবিতা লেখার ক্ষেত্রে কিন্তু অনুঘটকের ভূমিকাটা পিতারই ছিল । সুনীল তখন টাউন স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পরীক্ষা দিয়েছেন । ছুটির ক ‘ মাসে ছেলে যাতে বিপথে না যায় , পিতা আদেশ করলেন সময়টা ইংরেজি চর্চার কাজে লাগাতে হবে । টেনিসনের কবিতা অনুবাদ করে দেখাতে হবে । কিছু দিন চলল সুনীল লক্ষ্য করলেন , ইদানীং তাঁর পিতা আর অনুবাদ আক্ষরিক কি না , মিলিয়ে দেখছেন না । সুতরাং নিজের ঈশ্বরীকে উদ্দেশ করে নিজেই লিখতে শুরু করলেন কিছু লাইন আর সেগুলোই দেখতে দিলেন পিতাকে । এই ভাবেই কবিতায় হাত অভ্যাস করা শুরু ।

১৯৫৩ সাল থেকে তিনি কৃত্তিবাস নামে একটি কবিতা পত্রিকা সম্পাদনা শুরু করেন। সুনীলের প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘ একা এবং কয়েকজন ’ প্রকাশ পায় ১৯৫৮ সালে । ১৯৬২ সালে কলকাতায় এলেন মার্কিন কবি অ্যালেন গিনসবার্গ । সুনীলের সঙ্গে গভীর সখ্যতা গড়ে উঠল তার । পরের বছরই আইওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে পল এঙ্গেলের আমন্ত্রণে আন্তর্জাতিক লেখক কর্মশালায় যোগ দিলেন সুনীল ।

১৯৬৬ খ্রিষ্টাব্দে প্রথম উপন্যাস আত্মপ্রকাশ প্রকাশিত হয়। তাঁর উল্লেখযোগ্য কয়েকটি বই হল আমি কী রকম ভাবে বেঁচে আছি, যুগলবন্দী (শক্তি চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে), হঠাৎ নীরার জন্য, রাত্রির রঁদেভূ, শ্যামবাজারের মোড়ের আড্ডা, অর্ধেক জীবন, অরণ্যের দিনরাত্রি, অর্জুন, প্রথম আলো, সেই সময়, পূর্ব পশ্চিম, ভানু ও রাণু, মনের মানুষ ইত্যাদি। শিশুসাহিত্যে তিনি “কাকাবাবু-সন্তু” নামে এক জনপ্রিয় গোয়েন্দা সিরিজের রচয়িতা। মৃত্যুর পূর্বপর্যন্ত তিনি ভারতের জাতীয় সাহিত্য প্রতিষ্ঠান সাহিত্য অকাদেমি ও পশ্চিমবঙ্গ শিশুকিশোর আকাদেমির সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

তাঁর প্রকাশিত উপন্যাস গুলো হলো,পূর্ব-পশ্চিম,সেই সময়,প্রথম আলো,একা এবং কয়েকজন আত্ম জীবনী,অর্ধেক জীবন,ছবির দেশে কবিতার দেশে,আত্মপ্রকাশ,অরণ্যের দিনরাত্রি,সরল সত্য তুমি কে?,জীবন যেরকম,কালো রাস্তা সাদা বাড়ি অর্জুন,কবি ও নর্তকী,স্বর্গের নিচে মানুষ আমিই সে,একা এবং কয়েকজন,সংসারে এক সন্ন্যাসী রাধাকৃষ্ণ,কনকলতা,সময়ের স্রোতে,মেঘ বৃষ্টি আলো প্রকাশ্য দিবালোকে,দর্পনে কার মুখ,গভীর গোপন কেন্দ্রবিন্দু,ব্যক্তিগত,বন্ধুবান্ধব,রক্তমাংস,দুই নারী স্বপ্ন লজ্জাহীন,আকাশ দস্যু,তাজমহলে এক কাপ চা ধূলিবসন,অমৃতের পুত্রকন্যা,আজও চমৎকার ।

জোছনাকুমারী,নবজাতক,শ্যামসাহেব,সপ্তম অভিযান মধুময়,ভালোবাসার দুঃখ,হৃদয়ের অলিগলি,সুখের দিন ছিল,ফিরে আসা,রক্ত,স্বর্গ নয়,জনারণ্যে একজন সমুদ্রের সামনে,সামনে আড়ালে,জয়াপীড়,বুকের মধ্যে আগুন,কেউ জানে না,তিন নম্বর চোখ,সুখ অসুখ,অগ্নিপুত্র,বসন্তদিনের ডাক,সোনালি দুঃখ নদীর পাড়ে খেলা,যুবক যুবতীরা,পুরুষ,অচেনা মানুষ বৃত্তের বাইরে,কয়েকটি মুহুর্ত,রূপালী মানবী,মহাপৃথিবী উত্তরাধিকার,আকাশ পাতাল ।

নদীর ওপার হীরকদীপ্তি,অমলের পাখি,মনে মনে খেলা,মায়া কাননের ফুল,রাণু ও ভানু,ময়ূর পাহাড়,অন্য জীবনের স্বাদ,দুজন,খেলা নয়,কিশোর ও সন্ন্যাসিনী, গড়বন্দীপুরের কাহিনী,টান,প্রবাসী পাখি,বুকের পাথর বেঁচে থাকা,রাকা,রূপটান,শান্তনুর ছবি,শিখর থেকে শিখরে,উদাসী রাজকুমার,নীল চাঁদ : দ্বিতীয় মধুযামিনী একটি মেয়ে অনেক পাখি,আলপনা আর শিখা অনসূয়ার প্রেম,মধ্যরাতের মানুষ।

নীললোহিত সাহিত্যিক সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের ছদ্মনাম। নীললোহিতের মাধ্যমে সুনীল নিজের একটি পৃথক সত্তা তৈরি করতে সক্ষম হয়েছেন। নীললোহিতের সব কাহিনিতেই নীললোহিতই কেন্দ্রীয় চরিত্র। সে নিজেই কাহিনিটি বলে চলে আত্মকথার ভঙ্গিতে। সব কাহিনিতেই নীললোহিতের বয়স সাতাশ।

সাতাশের বেশি তার বয়স বাড়ে না। বিভিন্ন কাহিনিতে দেখা যায় নীললোহিত চির-বেকার। চাকরিতে ঢুকলেও সে বেশিদিন টেকে না। তার বাড়িতে মা, দাদা, বৌদি রয়েছেন। নীললোহিতের বহু কাহিনিতেই দিকশূন্যপুর বলে একটি জায়গার কথা শোনা যায়। যেখানে বহু শিক্ষিত, সফল কিন্তু জীবন সম্পর্কে নিস্পৃহ মানুষ একাকী জীবনযাপন করেন।

তাঁর লেখা বেশ কিছু গল্প-উপন্যাসের কাহিনি চলচ্চিত্রে রূপায়ণ করা হয়েছে। এর মধ্যে সত্যজিৎ রায় পরিচালিত অরণ্যের দিনরাত্রি এবং প্রতিদ্বন্দ্বী উল্লেখযোগ্য। এছাড়া কাকাবাবু চরিত্রের চারটি কাহিনি সবুজ দ্বীপের রাজা, কাকাবাবু হেরে গেলেন?, মিশর রহস্য এবং পাহাড়চূড়ায় আতঙ্ক চলচ্চিত্রায়িত হয়েছে। হঠাৎ নীরার জন্য তার চিত্রনাট্যে নির্মিত আরেকটি ছবি।ৎ

১৯৭২ ও ১৯৮৯ খ্রিষ্টাব্দে আনন্দ পুরস্কার এবং ১৯৮৫ খ্রিষ্টাব্দে সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কারে ভূষিত হন তিনি। ২০০২ সালে সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় কলকাতা শহরের শেরিফ নির্বাচিত হয়েছিলেন।

৩ অক্টোবর ২০১২ তারিখে হৃদযন্ত্রজনিত অসুস্থতার কারণে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। ২০০৩ সালের ৪ এপ্রিল সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় কলকাতার ‘গণদর্পণ’কে সস্ত্রীক মরণোত্তর দেহ দান করে যান। কিন্তু সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের একমাত্র পুত্রসন্তান সৌভিক গঙ্গোপাধ্যায়ের ইচ্ছেতে তাঁর দেহ দাহ করা হয়। পশ্চিম বঙ্গ সরকারের ব্যবস্থাপনায় ২৫ অক্টোবর ২০১২ তাঁর শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হয়।

আরোপড়ুন:

 

 

 

- Advertisement -

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলো করুন

25,028FansLike
5,000FollowersFollow
12,132SubscribersSubscribe
- Advertisement -

সর্বশেষ